লুচি বানানোর রেসিপি

লুচি আমরা কে না চিনি? শত শত বছর যাবত আমাদের দেশীয় খাবারের সংস্কৃতিতে শক্তপোক্ত স্থান দখল করে আছে এই লুচি। লুচি-সবজি কিংবা লুচি-মাংস... বাঙালি মাত্রই এই খাবার গুলোর সাথে পরিচিত। কেবল নিত্য দিনের খাবারে নয়, এদেশের পূজা পার্বণেও লুচির একটা ভীষণ কদর রয়েছে। লুচির সাথে মোহনভোগ হালুয়া কিংবা গরম রসগোল্লার নাম শোনা মাত্রই জিবে পানি আসতে বাধ্য ভোজন রসিক বাঙ্গালির। আর গরম গরম ফুলকো লুচির সাথে যদি ঝাল ঝাল আলুর দম হয়, তাহলে তো কথাই নেই!

আসুন, আজ জেনে নেয়া যাক ফুলকো লুচি আর আলুর দম বানাবার রেসিপি। যতটা ঝঞ্ঝাট মনে হচ্ছে, ততটা কিন্তু মোটেও নয়। বরং আগের রাতে একটু গুছিয়ে রাখলে সকালে লুচি- আলুর দম করতে পারবেন কর্মজীবী যে কেউ। আবার লাঞ্চ বক্সে কিংবা বাচ্চাদের টিফিনেও মানাবে বেশ।

লুচি ভাজতে হয় গরম তেলে।ফুলে উঠলেই আরেক পিঠ উলটে কয়েক সেকেন্ড পর নামিয়ে ফেলুন। সাদা থাকতেই। না হয় মচমচে হয়ে শক্ত হয়ে যাবে। যে লুচি চুলা থেকে নামানোর পর দুই আঙুল দিয়ে ছিড়ে খাওয়া যায় সেটাই পারফেক্ট লুচি। আটা মধ্যম খামির হবে। খুব পাতলা বা শক্ত খামির হবে না।

সুজি না দিলেও সমস্যা নেই। বেলার সময় ময়দা ব্যাবহার না করে তেল ব্যাবহার করব।কারন ময়দা ভাজার সময় তেলে জমে লুচি কালো হয়ে যাবে।

ফুলকো লুচি বেলতে অনেকেই মনে করেন লুচির ময়দায় বেশি করে তেল বা ঘি এর খামির দিলে লুচি ফুলবে ভালো। অনেকেই ভাবেন খামিরকে বুঝি আধ ঘণ্টা ভেজা কাপড়ে ঢেকে রাখলে লুচি ফুলকো হবে। সত্যি বলতে কি, করতে হবে না এই সব কিছুই। আপনার চট করে বানানো লুচিই হবে ফুলকো আর নরম। কেবল অনুসরণ করুন এই পদ্ধতি।



উপকরণ

ময়দা-১ কাপ।
তেল বা ঘি -২ টেবিল চামচ।
লবণ -১/২ চা চামচ।
পানি- প্রয়জনমত।
সুজি-১ চা চামচ( ইচ্ছা)।

প্রস্তুত প্রণালি

প্রথমে ময়দা ও সুজি তেল/ঘি দিয়ে ময়ান দাও।তারপর লবন দিয়ে মেখে আস্তে আস্তে পানি দিয়ে ভাল করে মথে খামির করতে হবে।খামির টা কে ২০/৩০ মিনিট একটি ভিজা কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে।তা হলে লুচি ফুলবে ভাল।

পুরো খামিরটাকে ১০/১২ ভাগ করুন। পিঁড়িতে তেল মাখিয়ে লুচি বেলে গরম ডুবোতেলে ভাজতে হবে। ফুলে উঠলে উল্টিয়ে নামিয়ে ফেলুন। পরিবেশন করুন ল্যাবড়া, ভুনা ডাল, মিক্সড সবজি, মাংস ভুনা, চাটনি, সালাদের সাথে।