পিঠা বানানোর নিয়ম ও রেসিপি

শীতের সময় আমরা সবাই কম বেশী পিঠা পুলি খেয়ে থাকি। আমাদের গ্রাম বাংলার ঐতিয্যই এই পিঠা। শীতের সকালে ভাপা পিঠার কোন তুলনা নাই। আমরা সাধারনত গুর দিয়ে ভাপা পিঠা বানিয়ে থাকি। আজ আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করব, কিভাবে ভাপা পিঠা ঝাল করেও তৈরি করা যায়। যা ডায়বেটিস রোগী বা অন্যরাও খেতে পারেন। তাহলে আসুন দেখি কি করে ঝাল ভাপা পিঠা বানানো যায়।

## ঝাল ভাপা পিঠা

ঝাল পুর তৈরিঃ

মিহি পেয়াজ কুচি-২ টেবিল চামচ,
কাচা মরিচ কুচি-১ টি,
ধনে পাতা কুচি-১ টেবিল চামচ,
লবন-সামান্য ।

এই সব উপকরন এক সাথে লবন দিয়ে মেখে নিলেই ঝাল পুর তৈরী হয়ে গালো।

মিষ্টি পুর তৈরীঃ

নারিকেল কোরানো-২ কাপ,
খেজ়ুরের গুর-১ কাপ,
এলাচ,
দারচিনি-১/২ টি,
তেজপাতা-১টি।

এই সব উপকরন এক সাথে মাখিয়ে চুলায় ১০মিনিট জাল দিলেই মিষ্টি পুর তৈরী হয়ে গালো।

পিঠা তৈরীঃ স্বিদ্ধ চালের গুরা-২ কাপ, পোলাওয়ের চালের গুরা-১ কাপ, পানি-১/২ কাপ, লবন-সামান্য।

প্রনালীঃ

স্বিদ্ধ চালের গুরা ও পোলাওয়ের চালের গুরা এক সাথে মিশিয়ে নিতে হবে। পানিতে লবন গুলিয়ে চালের গুরার মধ্যে দিয়ে ভাল করে মাখাতে হবে যেনো গুরা হালকা ভেজা ভাব হয়।

এবার চিকন চালনীর উপরে ভেজা গুরা দিয়ে চেলে নিতে হবে।

ভাপা পিঠা বানানোর পাতিলে পানি ভরে চুলায় বসাতে হবে।পানিতে ভাপ উঠলে পিঠা বানানোর ছাচে প্রথমে চালের গুরা দিয়ে ঝাল পুর/ মিষ্টি পুর দিয়ে উপরে চালের গুরা সমান করে দিতে হবে।

এবার পাতলা কাপড় দিয়ে ঢেকে ভাপ এর উপর বসিয়ে পিঠার ছাচ তুলে কাপড় দিয়ে পিঠা ঢেকে দিয়ে উপরে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিতে হবে।

৫ মিনিট অপেক্ষা করে চুলা থেকে পিঠা নামাতে হবে । গরম গরম পরিবেশন করুন সুস্বাদু ভাপা পিঠা ।