অ্যাকাডেমি অফ ফাইন আর্টস

চারুকলায় কলকাতা অনেক শহরকেই ছাড়িয়ে যায়। ১৮৩১ সালে কলকাতা টাউন হল এ ‘ব্রাহ্ম ক্লাব’-এর আয়োজনে প্রথম শিল্পকলা প্রদর্শনী হয়। কয়েকজন ‘শিক্ষিত ভারতীয়’ কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত ‘সোসাইটি ফর ইমপ্রুভমেন্ট অব ওরিয়েন্টাল পেইনটিং অ্যান্ড স্কাল্পচার’ (১৮৪২)-এর অখ্যাত ও স্বল্প স্থায়িত্বের পর ১৮৫৪ সালে ‘সোসাইটি ফর দি প্রমোশন অব ইন্ডাস্ট্রিয়াল আর্ট’-এর গৌরবময় আবির্ভাব ঘটে। বিশেষ পরিস্থিতিতে এ সোসাইটি ১৮৫৪ সালের ১৬ আগস্ট ‘স্কুল অব ইন্ডাস্ট্রিয়াল আর্ট’ এবং পরে এটিই ‘গভর্নমেন্ট স্কুল অব আর্ট’ (১৮৬৪)-এ রূপান্তরিত হয়।

ইউরোপীয় কর্মকর্তাদের প্রতিষ্ঠিত ‘ক্যালকাটা আর্ট সোসাইটি’ (১৮৮৯) এবং বাঙালি চিত্রকরদের প্রতিষ্ঠিত ‘ইন্ডিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর দি প্রমোশন অব ফাইন আর্টস অ্যান্ড ন্যাশনাল গ্যালারি’ (১৮৯২) বিলুপ্ত হয়ে যায়। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, অবনীন্দ্রনাথ এবং অন্যান্য বিখ্যাত ব্যক্তিগণের সমর্থন ও সাহায্যপুষ্ট বঙ্গীয় কলা সংসদ (১৯০৫) ও টিকে থাকতে ব্যর্থ হয়।



বিশ শতকের কলকাতার সুবিখ্যাত শিল্পকলা সমিতি হচ্ছে ‘ইন্ডিয়ান সোসাইটি অব ওরিয়েন্টাল আর্ট’ (১৯০৭)। পশ্চিমা রীতির অনুসারীগণ ‘ইন্ডিয়ান একাডেমি অব আর্ট’ (১৯২০) এবং ‘সোসাইটি অব ফাইন আর্টস’ (১৯২১) প্রতিষ্ঠা করেন। অন্যদিকে একটি বিপ্লবী গ্রুপ ‘ইয়াং আর্টস্ট ইউনিয়ন’ (১৯৩১) এবং ‘আর্ট রেবেল সেন্ট্রাল’ (১৯৩৩) গড়ে তোলে। ক্ষণকালীন প্রভাব বিস্তারের পর এসকল অ্যাসোসিয়েশনেরও মৃত্যু ঘটে। ‘একাডেমী অব ফাইন আর্টস’ (১৯৩৩) ব্যতিক্রমভাবে সংগঠনটির সাফল্যময় অস্তিত্ব অব্যাহত রাখে।