ছেলেদের ফ্যাশন টিপস

বর্তমান যুগে শুধুমাত্র মেয়েরাই যে ফ্যাশন সচেতন তা কিন্তু নয়। ছেলেরাও বেশ ফ্যাশন সচেতন হয়ে উঠেছেন। তবে ফ্যাশন সচেতন ছেলে বলতে এটা বুঝায় না যে তারা ব্র্যান্ডের পোশাক ছাড়া কাপড় এবং ব্র্যান্ডের এক্সেসরিজ বাদে কিছু ব্যবহার করতে চান না। একটু বুদ্ধি খাটিয়ে হাতের কাছে পাওয়া যে কোন জিনিস দিয়ে এবং কম খরচেও অনেক ফ্যাশনেবল হয়ে উঠা যায়। তাই পয়সা খরচ করে নয় মাথা খাটিয়ে ফ্যাশনেবল হয়ে উঠুন।

পোশাক মানুষের বাহ্যিক সৌন্দর্য রক্ষা করে। এটি মানুষের ব্যাক্তিত্ত্বেরও বহিঃপ্রকাশ ঘটায়। একটি সুন্দর পোশাক সবার মাঝে একজন ব্যক্তিকে আকর্ষনীয় করে তুলতে পারে। তবে সুন্দর পোশাক মানে অদ্ভুত পোশাক নয়। খুব সাধারন পোশাকেও নিজেকে সুন্দর করা যায়। বিশেষ করে ছেলেদের কথা আমি বলবো তাদেরকেতো সাধারণ পোশাকেই বেশী সুন্দর ও স্মার্ট দেখায়।

আমদের দেশের ছেদের ‘শার্ট, সাধারণ প্যান্ট, জিন্স, পাঞ্জাবী, ও টি-শার্ট’ এই পোশাক গুলোতেই বেশি সুন্দর দেখায়। আমি জানি আপনারা বলবেন, ‘ছেলেরা এর বাইরে কোনো পোশাক পরে কী’। আমিও বলবো 'না' পরে না। কিন্তু এগুলো পোশাকের মধ্যেও এমন কিছু স্টাইল আছে যা আমাদের দেশের ছেলদের একদমই মানায় না। যেমণ, পুরুষরা সাধারনত সার্ট প্যান্ট বা টি-সার্ট প্যান্ট বপরে। আবার সার্ট, টি-সার্ট বা প্যান্ট এর দুটি ধরন রয়েছে যেমন ,একটি সাধারণ অন্যটি ছেড়া, বা লম্বা রশি ঝোলানো উজ্জল রঙের কাপড়ের তৈরী পোশাক।

যারা ছেড়া স্টাইলের সার্ট, টি-সার্ট ও প্যান্ট পরে তারা সাথে গলায় চেইন পরে,হাতে বিভিন্ন রকমের বালা বা রশি জাতীয় কিছু লাগায়, আবার অনেকে কিছু লাগায় না। মানুষের দৃষ্টি তাদের সার্ট প্যান্টের ছেড়া বা রশির দিকে চলে যায় ফলে ব্যাক্তিত্ব নষ্ট হয়ে যায়। এমনকি তাদের এই পোশাক পরে সমাজের সকল জায়গায় যাওয়া ও সম্ভব নয় ।



আজকে জেনে নেয়া যাক ছেলেদের ফ্যাশনের জরুরী কিছু বিষয়-

১। পোশাক-আশাক দামি নয় পরিপাটি হওয়া প্রয়োজন। আপনি অনেক দাম দিয়ে পোশাক কিনেছেন ঠিকই কিন্তু যত্নের অভাবে তা নষ্ট হয়ে গেছে অথবা রঙ বেরঙ হয়ে গেছে এমন পোশাক দিয়ে তো কোনো কাজ নেই। পোশাক একটু কম দামি হলেও যদি পরিপাটি করে রাখেন তবে আপনাকে দেখতে আকর্ষণীয় লাগবে।

২। চুলের কাটের ব্যাপারে সতর্ক হোন। আপনাকে যে চুলের কাটে মানায় সেই ধরণের কাট দিন চুলে একটু পয়সা খরচ করে হলেও। একটি মানানসই চুলের কাট আপনাকে অনেকাংশে ফ্যাশনেবল করে তুলবে।

৩। চুলের পাশাপাশি দাড়ির দিকেও নজর রাখবেন। অনেককে একেবারে ক্লিন শেভে ভালো দেখায় আবার অনেককে ভালো দেখায় না। আপনার মুখে যদি দাড়ি গোফ মানায় তবে সেই অনুযায়ী দাড়ি গোফ রাখুন। এতে করে আপনি হয়ে উঠতে পারেন ফ্যাশনেবল।

৪। মেয়েদের তুলনায় ছেলেরা একটু বেশিই ঘেমে থাকেন। ছেলেরা যেহেতু বেশিরভাগ সময় ঘরের বাইরেই কাটান তাই অবশ্যই লক্ষ্য রাখবেন নিজের পারফিউমের দিকে। বাসা থেকে বেড়োনোর সময় বডি স্প্রে বা বডি রোল অন অথবা পারফিউম লাগাতে ভুলবেন না। তবে অতিরিক্ত পারফিউম ব্যবহার করবেন না একেবারেই।

৫। নানা এক্সেসরিজ যেমন ঘড়ি, সানগ্লাস, রুমাল ইত্যাদি ব্যবহার করুন। সাথে রাখুন স্টাইলিশ মানিব্যাগ। যারা কর্মজীবী মানুষ তারা সাথে রাখতে পারেন ভালো, মানানসই এবং সুন্দর ডিজাইনের সাইডব্যাগ।

৬। জুতার দিকে অবশ্যই নজর দিন। জুতা সব সময় পরিষ্কার রাখুন। অপরিষ্কার জুতা পড়বেন না। জুতো মলিন হয়ে এলে ভালো করে পালিশ করে নিন।

৭। একই স্টাইল বেশি দিন ধারণ করবেন না। মাঝে মাঝে স্টাইল পরিবর্তন করুন। পোশাক আশাকের ধরণে, চুলের কাটে এবং দাড়ি গোফের কাটে পরিবর্তন আনুন মাঝে মাঝেই। এতে করে আপনাকে অনেকটাই ফ্যাশনেবল লাগবে এবং আপনি নিজেও বুঝতে পারবেন আপনাকে কোন পোশাকে, কোন ছাঁটের চুলে ভালো লাগবে।