হাওড়া ব্রিজ

হাওড়া ব্রিজ পশ্চিমবঙ্গে রবীন্দ্র সেতু নামেও সুপরিচিত। কলকাতায় হাওড়া ব্রিজ হুগলী নদীর উপর প্রসারিত এবং ব্রিটিশদের একটি বিস্ময়কর প্রযুক্তি কর্ম বলে মনে করা হয়। বিশ্বের ব্যস্ততম প্রসারিত খিলান সেতুর মধ্যে হাওড়া ব্রিজ অন্যতম।

হাওড়া ব্রিজ প্রত্যহ প্রায় ৬০,০০০ যানবাহন ও অসংখ্য পথচারীর চলাচলের ভার বহন করে। হাওড়া ব্রিজ কলকাতা মহানগরী ও হাওড়ার মধ্যে সংযোগ স্থাপন করে। তাই হাওড়া ব্রিজ এই মহানগরীর জীবনরেখা স্বরূপ। হাওড়া ব্রিজ কলকাতার হুগলী নদীর উপর অবস্থিত তিনটি ব্রিজের মধ্যে একটি। বস্তুত, এটি ঔপনিবেশিক শহরের সবচেয়ে ভাবপ্রবণ বৈশিষ্ট্য এবং একটি গুরুত্বপূর্ণ পরিচয় হিসেবে খ্যাত।

হাওড়া সেতু নির্মাণ করতে দীর্ঘ ৭ বছর সময় লেগেছে। হাওড়ার এই প্রসারিত খিলান সেতুর কাজ সম্পন্ন হয় ১৯৪৩ সালে। কলকাতায় হাওড়া ব্রিজ এই একই বছরের মধ্যে যানবাহন চলাচল এবং জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত হয়। এই সেতুর নির্মাণে খরচ হয়েছিল প্রায় ২৫ লক্ষ টাকা। হাওড়া ব্রিজ এর পুরো কাঠামোটি রিভেট দ্বারা নির্মিত, যেখানে আপনি কোথাও নাট ও বোল্ট এর ব্যবহার দেখতে পাবেন না।



বর্তমানে, হাওড়া ব্রিজ কলকাতার প্রবেশদ্বার স্বরূপ, যেটি এই শহরকে হাওড়া স্টেশনের সাথে সংযুক্ত করে, যা হল কলকাতার মূল রেলওয়ে স্টেশন ও ভারতের সবথেকে ব্যস্ততম স্টেশন।

হাওড়া ব্রিজ ৭০৫ মিটার দীর্ঘ এবং ৯৭ ফুট চওড়া। হাওড়া ব্রিজের পরিকাঠামো ২৬,৫০০ টন প্রসারন সাধ্য ইস্পাত দ্বারা নির্মিত, যা দুটি স্তম্ভদ্বারা সাহায্যপ্রাপ্ত। প্রতিটি স্তম্ভ রাস্তার ঊর্ধ্বভাগে ৯০ মিটার জুড়ে অবস্থিত।