শিবলিঙ্গ এর ইতিহাস

শিবলিঙ্গ হচ্ছে শিবের প্রতীক। শিব হলো হিন্দু সমাজের প্রধান এবং আদি দেবতা। এজন্যই বলা হয় দেবাদিদেব মহাদেব। রামায়ন যুগেরও আগে, বিভিন্ন কারণে যেখানে শিবের জটিল মূর্তি তৈরি করে পূজা করা সম্ভব হয় নি, সেখানে, অপেক্ষাকৃত নির্মান পদ্ধতি সহজ বলে শিবের প্রতীক হিসেবে শিবলিঙ্গের পূজার প্রচলন হয়।

শিবলিঙ্গ বলে যেটাকে আমরা জানি বা দেখি, সেটা আসলে পুরুষ ও স্ত্রী লিঙ্গের সমষ্টি; পৃথিবীর সমস্ত প্রাণীকূলের সৃষ্টির জন্য যাদের ভূমিকা অপরিহার্য। এই সৃষ্টিকার্য বর্তমানে প্রকাশ্যে লজ্জাকর ব্যাপার হলেও, প্রকৃতপক্ষে এটা অত্যন্ত শ্রদ্ধা ও সম্মানের বিষয়। কারণ, এই সৃষ্টি প্রক্রিয়ার মাধ্যমেই আমাদের জন্ম এবং এর উপরেই টিকে রয়েছে পৃথিবী এবং আমাদের তথা প্রাণীকূলের তাবৎ ভবিষ্যৎ ও আশা-আকাঙক্ষা।



মহাদেব‬ বা শিব বলতেই আমাদের চিত্তজগৎ একটি মুর্তির উদয় হয় যিনি যোগাসনে উপবিষ্ট, বাঘের ছাল পরিহিত, ত্রিশুল ও ডমরুধারী, গলায় তার সাপ ইত্যাদি। কিন্তু এমন একটি মানুষ আমরা ছবির পাতায় এবং পাথর বা মাটির প্রতিমার মধ্যে ছাড়া তো বাস্তবে দেখতে পাই না। অথচ বহুকাল থেকেই দেশে সাড়ম্বরে শিবপূজা চলে আসছে। শিব উপাখ্যান নানাভাবে ছড়িয়ে আছে পুরাণে, গাথায়, কাব্যে, শিল্পকলায়। ভারতে এক সুবিপুল জনসমাজ শৈবকৃষ্টির অনুশীলন নিয়ে চলেছে।