পোস্টগুলি

July, 2015 থেকে পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে

হাওড়া ব্রিজ - ছবি ও ইতিহাস

ছবি
ভারতের কলকাতা শহর এবং হাওড়া শহরের মধ্যে যোগাযোগ স্থাপনকারী বিখ্যাত সেতু হলো হাওড়া ব্রিজ। এটি হুগলি নদীর ওপর অবস্থিত। হাওড়া ব্রিজ নামে বেশি পরিচিত হলেও ব্রিজটির বর্তমান নাম রবীন্দ্র সেতু। ১৮৭১ সালে ব্রিজটি নির্মাণের পরিকল্পনা করেন তৎকালীন ব্রিটিশ শাসকরা। এরপর ১৮৭৪ সালে হাওড়া ব্রিজের নির্মাণকাজ শেষ হয়। ব্রিজটি ছিল তৎকালীন ভারতবর্ষে সর্ববৃহৎ ভাসমান অবকাঠামো।

এই ব্রিজটির পরিকল্পনা, নকশা প্রণয়ন এবং তা বাস্তবায়নের দায়িত্ব পান ব্রিটিশ প্রকৌশলী স্যার ব্র্যাডফোর্ড লেসল। সে সময় ভারতে উন্নত প্রাযুক্তিক সুবিধার সীমাবদ্ধতার কারণে লেসল ইংল্যান্ডে সেতুর মূল কাঠামো নির্মাণ করেন। পরে জাহাজে করে মালামালগুলো কলকাতায় এনে সেতুটির জন্য নির্ধারিত জায়গায় বসিয়ে দেন। সেতুটির দুই দিকের স্তম্ভের মাঝখানের অংশের দৈর্ঘ্য ছিল ১৫২৮ ফুট।



সে সময়ই সেতুটির নির্মাণে ব্যয় হয়েছিল ৬০ লাখ রুপি। তবে সেতুটি নির্মাণের সময় ১৮৭৪ সালেই এক ঘূর্ণিঝড়ে একটি অংশ ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল। পরে সেগুলো মেরামত করে যানবাহন চলাচলের উপযোগী করা হয়। ১৯৪৫ সালে পুরনো সেতুটির জায়গায় বর্তমানের ক্যান্টিলিভার সেতুটির উদ্বোধন করা হয়। বর্তমানের রবীন্দ্র সেতু…

পেয়ারা, অত্যন্ত পছন্দের একটি ফলের নাম

ছবি
আমাদের দেশসহ এশিয়ান দেশগুলোতে পেয়ারা একটি খুব সাধারণ ও সহজলভ্য ফল হলেও পশ্চিমা দেশ গুলোতেও এটি পাওয়া যায়। এর আলাদা ধরনের স্বাদ ও গন্ধ ছাড়াও এর মাঝে রয়েছে স্বাস্থ্য উন্নত করার বহু গুনাগুন। শুধু ফলেই না এর গাছের পাতা ও বাকলেরও রয়েছে অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা।

পেয়ারায় অনেক বেশি ভিটামিন সি ও এ রয়েছে। আপনারা জেনে অবাক হবেন একটি পেয়ারাতে সমান আকৃতির একটি কমলার ৪ গুন এবং একটি লেবুর ১০ গুন বেশি ভিটামিন সি রয়েছে। এছাড়াও এতে রয়েছে ভিটামিন বি২, কে, আঁশ, ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, ফসফরাস,আয়রন,কপার, ফোলেট ও ম্যাঙ্গানিজ এবং এতে কোন চর্বি নেই। বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন রন্ধন প্রক্রিয়ায় এই ফলটি একটি মিষ্টি ও সুস্বাদু উপাদান হিসাবে ব্যবহৃত হয়। পেয়ারার জুস একটি শক্তিদায়ক
পানীয়।

দাঁতে প্লাক জমা মুখের ভেতরের একটি বড় সমস্যা। পেয়ারা পাতা এন্টিপ্লাক বিশিষ্টের জন্য খুব কার্যকর। ভেষজবিদরা মুখ গহ্বরের পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখার জন্য কচি পেয়ারা পাতার পেস্ট ব্যবহার করার পরামর্শ দেন। এই পাতার প্রদাহনাশক, বেদনাশক এবং জীবানুনাশক গুনাগুনের জন্য এটা মাড়ির প্রদাহ, মাড়ির ফোলা, মুখের দুর্গন্ধ দূর করতে, দাঁতের ব্যাথা, মুখের ঘা …

সিঙ্গারা বানানোর রেসিপি - সিঙ্গারা ভাঁজ করার পদ্ধতি

ছবি
বাঙ্গালীদের জাতীয় খাবার এর তালিকায় আমি সিঙ্গারাকেই সবার উপরে রাখব। দুপুরে লাঞ্চের আগে গরম গরম সিঙ্গারা আর পেয়াজ হলে কথাই নেই! সিঙ্গারার স্বাদ নির্ভর করে ভিতরের উপকরণ এর উপর। আর উপকরণ হিসেবে যদি আলু থাকে তাহলে স্বাদই থাকে আলাদা। মজার আলু সিঙ্গারার খোঁজে কলকাতার অলি-গলি চষে বেড়িয়েছি। পুরান কলকাতার সিঙ্গারা খেয়ে মন-পেট দুটোই ঠাণ্ডা হল।

সিঙ্গারার ভিতরটা সাধারণত ড্রাই হয় কিন্ত এদের সিঙ্গারা রসাল ছিল। প্রতি কামড়েই আলুর উপস্থিতি টের পাচ্ছিলাম। সিঙ্গারার সাথে তারা ঘন সস দেয়। সিঙ্গারার ভিতর আলু, আর পেয়াজের দারুন একটা মিলন ছিল! এত মজা লেগেছে যে বাসায় পার্সেলও করে নিয়ে এসেছি ।



উপকরণঃ

আলু ১/২ কেজি
মৌরি ১/২ চা চামচ
জিরা ১/২ চা চামচ
মেথি ১/২ চা চামচ
পেঁয়াজ ২ টি
কাঁচামরিচ ৪-৬ টি
আদা ছেঁচা ২ চা চামচ
জিরা টালা এবং গুঁড়ো ১ চা চামচ
দারচিনি গুঁড়ো ১ চা চামচ
ময়দা ২ কাপ
কালজিরা ১ চা চামচ

প্রণালী:

আলু খোসা ছাড়িয়ে মটরের মত ছোট ছোট টুকরা করে নিতে হবে। কড়াইয়ে ৩ টেবিল চামচ তেল গরম করে মৌরি, জিরা ও মেথি একসাথে মিশিয়ে তেলে ফোড়ন দিন। পেঁয়াজ, কাঁচামরিচ, আদা ও ১টি তেজপাতা দিয়ে ভাজুন ও আলু দিন।

একটু ভাজা হলে ১ চা চামচ …