Friday, January 31, 2014

East Kolkata Wetlands


The East Kolkata Wetlands, spread over 12500 hectare on the eastern fringes of the city, one of the largest systems of wastewater agriculture in the world, comprise a large number of sewage fed water bodies are a complex of natural and human-made wetlands form a part of the extensive inter-distributary water networks of the Ganges where 250 million gallons of urban sewage flows into shallow ponds.

Tuesday, January 28, 2014

খোয়া ক্ষীর রান্নার রেসিপি

গরুর খাঁটি দুধ ঘন জ্বালে তৈরী হয় খুবই সু-স্বাদু ক্ষীর । এম্নিতে খাওয়ার পাশাপাশি শীতকালিন পিঠা, বিশেষ করে পাটিশাপটা পিঠায় পুর হিসেবে খুবই সু-স্বাদু ও জনপ্রিয়।

উপকরণ:

দুধ ১.৫ লিটার/ ৫ কাপ

রেসিপি প্রণালি:

একটি বড় পাতিলে দুধ দিয়ে মাঝারি আঁচে চুলায় দিন। বলক আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। এবার আঁচ কমিয়ে দুধ জাল দিতে থাকুন ঘন হওয়ার জন্য। ২-৩ মিনিট পর পর পাতিলের নিচ পর্যন্ত চামচ দিয়ে নাড়তে হবে যেন নিচে লেগে না যায়।

পাশ থেকে ও দুধ টা নামিয়ে নিতে হবে। যখন দুধ অর্ধেকের কম হয়ে যাবে তখন ঘন ঘন নাড়তে হবে। খেয়াল রাখতে হবে যেন দুধ লেগে না যায়।

রং টা যেন লাল না হয়ে যায়। দুধ টা যখন একদম দলা পেকে যাবে তখন চুলা নিভিয়ে দিন। ঠান্ডা হতে দিন। ঠান্ডা হলে আরো শক্ত হবে। এবার এটা আপনার ইচ্ছা অনুযায়ী ব্যবহার করুন।

অনেকেই হয়তো জানেন না মাওয়া আর খোয়া ক্ষীর একি। কলকাতায় এটাকে খোয়া ক্ষীর বলে আর আমরা মাওয়া বলি।


Thursday, January 23, 2014

Kolkata Fashion Week


The Kolkata fashion week is a fashion event, lasting approximately one week, which allows fashion designers and the fashion houses to present their latest collections and the public to realize what are the latest trends.

Tuesday, January 21, 2014

Rabindra Sadan


Rabindra Sadan is a cultural centre and theatre in Kolkata where live dance or drama performance or cultural programmes and exhibition are held regularly. Rabindranath Tagore, sometimes called also the title of Gurudev, is the Anglicized name of Rabindranath Thákhur. He exercised an enormous fascination on the Western world, who rewarded him with the Nobel Prize for Literature in 1913.

Monday, January 20, 2014

দ্য স্টেটসম্যান

ভারতের প্রাচীনতম ইংরেজি সংবাদপত্র দ্য স্টেটসম্যান, কলকাতায় ১৮৭৫ সালে প্রথম প্রকাশিত হয়। আজ পর্যন্ত এটি পশ্চিমবঙ্গের এক অন্যতম নেতৃস্থানীয় সংবাদপত্র। কলকাতার পাশাপাশি ভুবনেশ্বর, নিউ দিল্লী ও শিলিগুড়ি থেকেও দ্য স্টেটসম্যান প্রকাশিত হয়। এটা দুটি সংবাদপত্রের সহযোগিতায় অবতীর্ণ হয়েছে, দ্য ইংলিশ ম্যান এবং দ্য ফ্রেন্ডস অফ ইন্ডিয়া।

দ্য ইংলিশ ম্যান এবং দ্য ফ্রেন্ডস অফ ইন্ডিয়া উভয়ই কলকাতা থেকে প্রকাশিত হত। দ্য ইংলিশ ম্যান ১৮১১ সালে প্রথম প্রকাশিত হয়। দ্য স্টেটসম্যান, কলকাতা শুরু হয় দ্য স্টেটসম্যান এবং নিউ ফ্রেন্ড অফ ইন্ডিয়া নাম থেকে। খুব শীঘ্রই এর প্রকৃত নাম সংক্ষিপ্ত করা হয় এবং এই সংবাদপত্র দ্য স্টেটসম্যান হিসেবে পরিচিত হয়ে ওঠে। স্বাধীনতার পর এই সংবাদপত্রের কর্তৃত্ব ভারতীয়দের স্থানান্তরিত করা হয়।



কলকাতায় চৌরঙ্গী স্কোয়ারের দ্য স্টেটসম্যান হাউস, এই পত্রিকার প্রধান কার্যালয় হিসাবে ভূমিকা পালন করে। যদিও, নিউ দিল্লীর কনট প্লেস- এর স্টেটসম্যান গৃহ হল জাতীয় সম্পাদকীয় কার্যালয়। এটি এশিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক- এরও সদস্য।

দ্য স্টেটসম্যান দৈনন্দিন আঞ্চলিক, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সংবাদ প্রকাশ করে। এটি বিশ্ব ব্যাপী ক্রীড়াসূচীরও ব্যাপক বিবরণ দেয়। দ্য স্টেটসম্যান-এর কলকাতা সংস্করণের পাশাপাশি কিছু সম্পূরকও প্রকাশিত হয়। এদের মধ্যে সবচেয়ে উল্লিখিত হল ভয়েসেস্। সৃষ্টির পর থেকেই এটি বিদ্যালয় যাত্রীদের কাছে খুবই জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। কলকাতার দ্য স্টেটসম্যান এর অন্য এক জনপ্রিয় সম্পূরক হল দ্য এইটথ্ ডে। এটি প্রত্যেক রবিবারীয় পত্রিকার প্রধান পাতার সাথে থাকে যাতে আপনি বিভিন্ন বিষয়ে নিবন্ধ পাঠ করার সুযোগ পান।

দ্য স্টেটসম্যান এর একটি বৈকাল সংস্করণও উপলব্ধ আছে।



Friday, January 17, 2014

Nalban Boating


Nalban the 400 acre serene natural endless expanse of emerald water of Boating Complex a new lakeside attraction of Calcutta in Salt Lake, just 12 Km away from Central Kolkata, is one of the finest picnic spot in the city that gives you an opportunity to experience the beauty of nature to spend me time.

Wednesday, January 15, 2014

Mallickghat Flower Market


The flower market in Mullickghat, under the old Howrah Bridge, is one of the most famous. It is a special place, whose frenetic activity is continuous, day and night, between an unimaginable crowd, tons of garlands of flowers.

Tuesday, January 14, 2014

পিঠা বানানোর নিয়ম ও রেসিপি

শীতের সময় আমরা সবাই কম বেশী পিঠা পুলি খেয়ে থাকি। আমাদের গ্রাম বাংলার ঐতিয্যই এই পিঠা। শীতের সকালে ভাপা পিঠার কোন তুলনা নাই। আমরা সাধারনত গুর দিয়ে ভাপা পিঠা বানিয়ে থাকি। আজ আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করব, কিভাবে ভাপা পিঠা ঝাল করেও তৈরি করা যায়। যা ডায়বেটিস রোগী বা অন্যরাও খেতে পারেন। তাহলে আসুন দেখি কি করে ঝাল ভাপা পিঠা বানানো যায়।

## ঝাল ভাপা পিঠা

ঝাল পুর তৈরিঃ

মিহি পেয়াজ কুচি-২ টেবিল চামচ,
কাচা মরিচ কুচি-১ টি,
ধনে পাতা কুচি-১ টেবিল চামচ,
লবন-সামান্য ।

এই সব উপকরন এক সাথে লবন দিয়ে মেখে নিলেই ঝাল পুর তৈরী হয়ে গালো।

মিষ্টি পুর তৈরীঃ

নারিকেল কোরানো-২ কাপ,
খেজ়ুরের গুর-১ কাপ,
এলাচ,
দারচিনি-১/২ টি,
তেজপাতা-১টি।

এই সব উপকরন এক সাথে মাখিয়ে চুলায় ১০মিনিট জাল দিলেই মিষ্টি পুর তৈরী হয়ে গালো।

পিঠা তৈরীঃ স্বিদ্ধ চালের গুরা-২ কাপ, পোলাওয়ের চালের গুরা-১ কাপ, পানি-১/২ কাপ, লবন-সামান্য।

প্রনালীঃ

স্বিদ্ধ চালের গুরা ও পোলাওয়ের চালের গুরা এক সাথে মিশিয়ে নিতে হবে। পানিতে লবন গুলিয়ে চালের গুরার মধ্যে দিয়ে ভাল করে মাখাতে হবে যেনো গুরা হালকা ভেজা ভাব হয়।

এবার চিকন চালনীর উপরে ভেজা গুরা দিয়ে চেলে নিতে হবে।

ভাপা পিঠা বানানোর পাতিলে পানি ভরে চুলায় বসাতে হবে।পানিতে ভাপ উঠলে পিঠা বানানোর ছাচে প্রথমে চালের গুরা দিয়ে ঝাল পুর/ মিষ্টি পুর দিয়ে উপরে চালের গুরা সমান করে দিতে হবে।

এবার পাতলা কাপড় দিয়ে ঢেকে ভাপ এর উপর বসিয়ে পিঠার ছাচ তুলে কাপড় দিয়ে পিঠা ঢেকে দিয়ে উপরে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিতে হবে।

৫ মিনিট অপেক্ষা করে চুলা থেকে পিঠা নামাতে হবে । গরম গরম পরিবেশন করুন সুস্বাদু ভাপা পিঠা ।

Steamed Pitha Dumplings images

Friday, January 10, 2014

Paan Supari


Calcutta Meetha Paan is a must try for tradition of chewing betel leaf is an integral part of the Indian culture, which is very fresh and had good flavour. The Betel nut seeds are chewed after meals as they stimulate the activity and salivary digestion, but it seems that they also possess cardiotonic action, astringent and vermifuge.

Wednesday, January 8, 2014

চালের পায়েস রান্নার পদ্ধতি, রেসিপি

আমরা বেশ কিছু খাবারের নাম নিয়ে কমন কিছু ভুল করি. তার মধ্যে একটা হলো, পায়েস, ক্ষীর আর ফিরনি নিয়ে. অনেকেই এদের মধ্যে পার্থক্য জানি না. আমি বেশ অনেকদিন আগে আমার ব্লগে প্রথম এটার পার্থক্য গুলো লিখি ,তবে সেটা ইংলিশে লেখা. এখন যেহেতু বাংলায় লিখছি ,তাই মনে হলো এ ব্যাপারে আবার লিখি. পায়েস, ফিরনি, ক্ষীরের উপাদান প্রায় একি হলেও স্বাদ এবং টেক্সচারে এদের মধ্যে রয়েছে বেশ পার্থক্য.

ক্ষীর: দুধের অনুপাত চালের থেকে অনেক বেশি এবং দুধ কে জ্বাল দিয়ে অনেক টানিয়ে ঘন করে ফেলা হয়. দুধ ছাড়া ক্ষীর হবে না. অনেক সময় চাল বা অন্য কোন কিছু ছাড়াই দুধ টানিয়ে ক্ষীর করা হয়. যেমন ক্ষিরসা. যতদুর জানি, ক্ষিরসা শব্দটি হিন্দি বা উর্দু ক্ষীর সা মানে ক্ষীরের মতো থেকে এসেছে.
ছোট বেলায় ক্ষীরের পুতুল পড়েছেন? নাম থেকেও কিন্তু বোঝা যায় ক্ষীর নরম কিন্তু প্রায় সলিড ফর্মের থাকবে. ক্ষীরের পুর দিয়ে পাটিসাপটা, ক্ষীর পুলি সহ অনেক পিঠা করা হয়.

পায়েস: পায়েসে গোটা চাল ব্যাবহার করা হয়. দুধ জ্বাল দিয়ে ক্ষীরের মতো অত ঘন করার দরকার নেই. এটি ক্ষীরের মতো প্রায় সলিড নয়. ঘন কিন্তু থকথকে হবে না.

ফিরনি: ফিরনি নওয়াবদের রসুইঘরের শাহী ডেসার্টের একটি. ফিরনি তে ব্যাবহার করা হয় ভাংগা সুগন্ধি চাল আর জাফরান, কেওড়া, বাদাম, কিশমিশ সহ নানা শাহী উপাদান এর বৈশিষ্ট. এই ভাংগা চাল থেকে বের হওয়া স্টার্চই ফিরনির ঘনত্বের উৎস.

যাই হোক, আজকে পায়েসের রেসিপি দিচ্ছি. দুধের পায়েস. একটা কথা বলি,পায়েস রান্নার একটা সাধারন রুল হলো, ১ লিটার দুধে ১ মুঠো চাল. এক মুঠো মানে প্রায় ১/৪ ভাগ কাপ চাল. এর থেকে কিছু বেশিও নেয়া যায়, কিন্তু ১ লিটার দুধে ১/২ কাপ এর বেশি চাল নিলে সেটা প্রায় দুধ ভাত ধরনের হয়.

আমার এক বন্ধুর পায়েসের রেসিপি পেয়েছিলাম উনি ৫ লিটার দুধে মাত্র দু মুঠো চাল দিয়ে পায়েস করতেন. আহহহহহহহ! কি স্বাদ! হ্যা, সব সময় এত দুধ দিয়ে এত অল্প পরিমানে পায়েস করা সম্ভব হয় না. কিন্তু সেটার একটা টেক্নিক আছে. এক গাদা চাল আগেই এত অল্প দুধে সিদ্ধ করা হয় না কারন সিদ্ধ হয়ে আসল কন্সিস্টেন্সিতে আসার আগেই সেটা টেনে যাবে. এই জন্য অনেকেই আগে চালটাকে আলাদা সিদ্ধ করে খুব ঘন দুধে জ্বাল দিয়ে ,চিনি যোগ করে করে. যাক,সেই রেসিপি না হয় পরে কখনো দেয়া যাবে. আজকে বেসিক পায়েসের রেসিপি দেই.

শীতে ঘন দুধের খেজুরের রসের সুগন্ধে মৌ মৌ পায়েস কার না পছন্দ! কিন্তু এই পায়েস রাধতে গিয়ে কত মানুষের কত মন খারাপ. দুধ ফেটে গেল কেন? গুড়ের সুন্দর গন্ধ টা আসছে না. চাল গুলো ঠান্ডা হবার পর কেমন শক্ত আর তাকিয়ে তাকিয়ে আছে যেন! আমি অনেক রেসিপি দেখেছি,যেখানে দুধের সাথে গুড় জ্বাল দেয়ার কথা রয়েছে!

আর ইউ কিডিং মি? একটা রেসিপি কেউ লিখলে দায়িত্বের সাথে লেখা উচিত. দুধ আর গুড় গরম অবস্থায় জ্বাল দিলে ফেটে যাবার চান্স ৯৯.৯৯%.
এখন সেই খাটি গুড় কই? আর কমার্শিয়ালি করা গুড়ে এখন সোডা দেয়া ছাড়াও অনেক কেমিক্যাল ইউজ করা হয়. খাটি গুড় বলে বিক্রি করা গুড়েও নিদেন পক্ষে সোডা দেয়া থাকবে. এই গুড় গরম দুধে দেয়ার সাথে সাথে ফাটবে না তো কি! সমাধান পরে দিচ্ছি. এখন আসি আরেকটা ইস্যু নিয়ে. গুড়ের সুন্দর গন্ধ পাই না কেন?

আমি যত রেসিপি দেখেছি, সব যায়গায় গুড়ের পায়েস এ এলাচ, দারচিনি, তেজপাতা দেয়া!! এই গরম মশলার কারনে খেজুর গুড়ের সুন্দর গন্ধ টাই থাকে না. ঘন দুধের গুড়ের পায়েস এর উপাদান খুব সামান্য. দুধ,চাল আর ভাল মানের গুড়. চাইলে কেউ নারকেল দেই. এই তো. এর বেশি আর কিছুই না. প্লিজ নো গরম মশলা. তারপর দেখুন গুড় কেমন করে চারদিকে মৌ মৌ সুগন্ধে ভরে রাখে.

এখন প্রসেস এ আসি. দুইভাবে করা যায়.প্রথমে গুড় আর চাল একসাথে জ্বাল দেয়া হয়. চাল সিদ্ধ হয়ে নরম আর ঘন হয়ে আসার পর, ঠান্ডা হয়ে হালকা গরম থাকতে, হালকা গরম খুব ঘন দুধ মেশানো হয়. অথবা প্রথমে দুধে চাল জ্বাল দেয়া হয়. সিদ্ধ হয়ে ঘন হওয়ার পর ঠান্ডা করে হালকা গরম থাকতে, হালকা গরম ঘন করা জ্বাল দেয়া গুড় মিশিয়ে. আমি শেষের পদ্ধতি তে করেছি.

গরম দুধে কখনো গুড় দিবেন না. দুধ ফেটে যাবে. আবার দুধ হালকা গরম কিন্তু গুড় আগুন গরম, তাতেও কিন্তু দুধ ফেটে যাবে. দুটোই কুসুম গরম থাকবে. মেশানোর পর আমি আর জ্বাল দেই না. অনেকে দেয়. আমি দেই না. রিস্ক নেয়ার দরকার কি!



উপকরণ:

৩ কাপ চাল
দেড় কেজি দুধ
১ কাপ খেজুর গুড়
২ কাপ পানি
১ কাপ নারকেল কোড়া

প্রনালী:

১. চাল ধুয়ে ১ ঘন্টা ভিজিয়ে পানি ঝরিয়ে নিন. দুধ আর চাল একসাথে সিদ্ধ হতে দিন. প্রথমে মাঝারি আচে. প্রথম দিকে ঘন ঘন নাড়িয়ে দিবেন, আর না হলে নিচে চাল লেগে যেতে পারে. বলক আসলে জ্বাল মাঝারি থেকে কম আচে দিয়ে জ্বাল দিতে থাকুন. মাঝে মাঝে নেড়ে দিবেন. উপরে সরের মত পড়বে, দুধে মিলিয়ে দিন.

২. চাল সিদ্ধ হয়ে গেলে হ্যান্ড ব্লেন্ডার বা ডাল ঘুটুনি দিয়ে অল্প একটু ঘুটে দিন. পায়েস বেশ ঘন হয়ে আসলে চুলা বন্ধ করে দিন. একদম থকথকে ঘন না, কিন্তু বেশ ঘন, যাতে গুড় মিশালে পায়েস এর পারফেক্ট কন্সিসটেন্সি টা আসে, সেটা আন্দাজ করেই.

৩. দুধ আর চাল জ্বাল দেবার সময়, ১ কাপ খেজুর গুড় দেড় কাপ পানিতে জ্বাল দিয়ে অর্ধেক মানে ৩/৪ ভাগ কাপ করে ফেলুন. ঠান্ডা হতে দিন.

৪. দুধ আর চাল হালকা গরম থাকতে নারকেল কোড়া দিন. এখন ঠান্ডা হওয়া হালকা গরম গুড় বা রুম টেম্পেরেচারের গুড় আস্তে আস্তে মিশিয়ে নিন. গুড় মেশানোর পর আপনি যেমন কন্সিসটেন্সির পায়েস খেতে চান, তার থেকে একটু পাতলা থাকবে, কারন ঠান্ডা হলে এটা ঘন হয়ে জমে যাবে. ঠান্ডা হবার পর গুড়ের রংটাও পায়েসে সুন্দর আসবে. মজা করে খান.

Tuesday, January 7, 2014

শ্রীকৃষ্ণের ঝুলন যাত্রা ছবি, ইতিহাস, পূর্ণিমা

ঝুলন যাত্রা মানেই হচ্ছে শ্রীমতি রাধারাণী কিন্তু বিশেষ করে বাংলাতে অধিকাংশ গৃহস্থগণ গোপালকে দিয়ে এটি উদযাপন করে থাকে। অনেক গৃহেই তারা এভাবে পালন করে। ভারতের বিভিন্ন মন্দিরে তারা এই ঝুলনযাত্রার উদযাপন করে। এমনকি তিরুপতিতে তারা বালাজীকে দুলিয়ে থাকে।

কিন্তু এই বিশেষ দিনগুলি হচ্ছে রাধারাণী এবং কৃষ্ণের জন্য। কৃষ্ণ অধিক সন্তুষ্ট হন যখন আপনারা রাধারাণীর সাথে তাঁকে দোলান। তাই আমাদের উচিত এই সুযোগটি গ্রহণ করা, এই সময়টিতে রাধা ও কৃষ্ণের ঝুলন যাত্রা উদযাপন করা। কিন্তু যদি কোন নামহট্টে শুধুমাত্র গোপাল বিগ্রহ থেকে থাকে তাহলে তারা গোপালকে দুলিয়ে থাকে। কিন্তু যেখানে আমাদের রাধা ও কৃষ্ণ রয়েছে, আমরা সর্বদাই রাধা ও কৃষ্ণের ঝুলনযাত্রা উদযাপন করে থাকি।


Saturday, January 4, 2014

New Market Kolkata


Before leaving Kolkata shopping is a must in the New market or Sir Stuart Hogg Market. The architecture of the market dates back to the seventeenth century and is fabulous. Like most good things in the city, this has also undergone a change in recent renovations and the growing number of tourists. It is still a great experience, where you can find everything and at all prices from gold, jewels, silks, saris, spices, teas and even food products.

Thursday, January 2, 2014

Kolkata Monsoon


The main monsoon season in Kolkata runs from June to September and the question that always all travelers are asking is always the same, or if it is possible to travel across the place during this period. This is very understandable because the thought of rain and flooding is enough to put a stop to any kind of vacation.The Monsoon time may be a great time to visit Kolkata where tourist attractions are not crowded, rates in general are cheaper, and in particular those hotels.