Tuesday, December 31, 2013

Vidyasagar Setu Evening


In Kolkata Vidyasagar Setu is known as the second Hooghly bridge. It is a beautiful bridge over the river Hooghly. Vidyasagar Setu is suspended 457 meters above the river Hoogly. This bridge is beautifully lit at night. The Vidyasagar Setu is one of the symbols of the city of Kolkata and one of the most famous bridges in the world. Crosses the river Hooghly in its narrowest point.

Monday, December 30, 2013

Kolkata Spa Ayurveda


Located just 20 minutes from Kolkata International Airport, on land with forests and waterfalls of over 60 hectares, the Best Western Premier Vedic Village Spa Resort combines the luxury of a 5 star hotel in an ethnic ambience, making it a ideal place to stay. The spa competes with the best in the world in the field of holistic and offers holistic rejuvenation, targeted therapies and healing processes through the integration of Ayurveda, Yoga and naturopathy.

Saturday, December 28, 2013

সুন্দরবন ভ্রমন - রয়েল বেঙ্গল টাইগার ছবি

আসছে পূজার ছুটিতে চলুন ঘুরে আসা যাক বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট সুন্দরবন থেকে। গহীন বনের নীরবতা আপনাকে হাতছানি দিয়ে ডাকছে। দুপাশে গভীর বন, মাঝে কখনও নদী, কখনও সাগর। ভাঁটার সময় শ্বাসমূলের জেগে থাকা, হরিণের পানি খেতে খেতে চমকে দৌড়ে সরে যাওয়া । রাতের গভীরতাতে জোনাকির আলো আর নানা অচেনা পাখির ডাক। কখনও জেলেদের মাছ ধরার নৌকা কিংবা কখনও খালের পানিতে নৌকা ভাসিয়ে দুপাশ দেখতে দেখতে যাওয়া। এই হোল সুন্দরবন।



সুন্দরবনের গহীনে আকর্ষনীয় সব দর্শনীয় স্থান, এবং দেখতে পারেন বাঘ, হরিন, কুমির, ডলফিন, বানর সহ অসংখ্য বন্যপ্রানী ও অতিথি পাখি। বেঙ্গল টাইগার বা রয়েল বেঙ্গল টাইগার, বাঘের একটি উপপ্রজাতি। বেঙ্গল টাইগার সাধারণত দেখা যায় ভারত ও বাংলাদেশে। এছাড়াও নেপাল, ভুটান, মায়ানমার ও দক্ষিণ তিব্বতের কোনো কোনো অঞ্চলে এই প্রজাতির বাঘ দেখতে পাওয়া যায়। বাঘের উপপ্রজাতিগুলির মধ্যে বেঙ্গল টাইগারের সংখ্যাই সর্বাধিক।
প্রথাগতভাবে মনে করা হয়, সাইবেরীয় বাঘের পর বেঙ্গল টাইগার দ্বিতীয় বৃহত্তম উপপ্রজাতি। বেঙ্গল টাইগার উপপ্রজাতি বাংলাদেশের জাতীয় পশু। অন্যদিকে প্রজাতি স্তরের ভারতের জাতীয় পশু।

ভারত ও বাংলাদেশের সুন্দরবন এলাকায় যে সুদর্শন বাঘ দেখা যায় তা পৃখিবীব্যাপী রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার নামে পরিচিত। কয়েক দশক আগেও (পরিপ্রেক্ষিত ২০১০), বাংলাদেশের প্রায় সব অঞ্চলে রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের বিচরণ ছিলো। পঞ্চাশের দশকেও বর্তমান মধুপুর এবং ঢাকার গাজীপুর এলাকায় এই বাঘ দেখা যেতো; মধুপুরে সর্বশেষ দেখা গেছে ১৯৬২ এবং গাজীপুরে ১৯৬৬ খ্রিষ্টাব্দে।

বর্তমানে সারা পৃথিবীতে ৩০০০-এর মতো আছে, তন্মধ্যে অর্ধেকেরও বেশি ভারতীয় উপমহাদেশে। এই সংখ্যা হিসাব করা হয় বাঘের জীবিত দুটি উপপ্রজাতি বা সাবস্পিসীজের সংখ্যাসহ। ২০০৪ সালের বাঘ শুমারী অনুযায়ী বাংলাদেশে প্রায় ৪৫০টি রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার রয়েছে। তবে বিশেষজ্ঞদের ধারণা এর সংখ্যা ২০০-২৫০টির মতো। বাংলাদেশ ছাড়াও এদের বিচরণ রয়েছে ভারতের সুন্দরবন অংশে, নেপাল ও ভুটানে।

এর গায়ের রঙ হলুদ থেকে হালকা কমলা রঙের হয়, এবং ডোরার রঙ হয় গাঢ় ক্ষয়েরি থেকে কালো; পেটটি হচ্ছে সাদা, এবং লেজ কালো কালো আংটিযুক্ত সাদা। একটি বদলানো বাঘের জাতের (সাদা বাঘ) রয়েছে সাদা রঙের শরীরের উপর গাঢ় ক্ষয়েরি কিংবা উজ্জল গাঢ় রঙের ডোরা, এবং কিছু কিছু শুধুই সাদা। কালো বাঘের রয়েছে কমলা, হলুদ কিংবা সাদা রঙের ডোরা। স্মাগলারদের কাছ থেকে উদ্ধারিত হয় যে একটি কালো বাঘের ত্বকের মাপ হচ্ছে ২৫৯ সেঃমিঃ, ডোরাবিহীন কালো বাঘ রিপোর্ট করা হয়েছে তবে রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার এর ক্ষেত্রে কোনো প্রমান এখনও পাওয়া যায়নি। যদিও জাগুয়ার বা লেপার্ড এর ৬ শতাংশ-ই কালো হয়ে থাকে।

উত্তর ভারতের পুরুষ বাঘেরা সাইজে সাইবেরিয়ান বাঘের মতোই। উত্তর ভারত ও নেপালে পুরুষদের গড় ওজন ২৩৫ কেজি আর মহিলাদের ১৪০ কেজি। বর্তমানে বিভিন্ন বাঘ জাতির ওজনের উপর পরীক্ষা করে দেখা যাচ্ছে যে গড়ে বেঙ্গল টাইগারেরা সাইবেরিয়ান বাঘের চেয়ে বড়। একটি বেঙ্গল টাইগারের গর্জন ৩ কিলোমিটার পর্যন্ত দুরে শোনা যায়।

বাংলাদেশে সুন্দরবনই রয়েল বেঙ্গল টাইগারের শেষ আশ্রয়স্থল। মানুষের আগ্রাসনে গোলপাতার ঝোঁপ আর গাছ যেভাবে কমে যাচ্ছে, তাতে বাঘের বিচরণ বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। খাদ্যঘাটতি দেখা দিচ্ছে জঙ্গলের ভিতরে। এভাবে ক্রমে রয়েল বেঙ্গল টাইগার বিলুপ্তির হুমকিতে অবস্থান করছে।

Friday, December 27, 2013

স্টার থিয়েটার

১৮৮৩ সালের দিকে বিখ্যাত অভিনেতা ও নাট্যকার গিরিশচন্দ্র ঘোষ এবং বিনোদিনী দাসী স্টার থিয়েটার গড়ে তুলেছিলেন । কারণ গ্রেট ন্যাশনাল থিয়েটারের মালিক ছিলেন একজন অবাঙ্গালী ব্যবসায়ী প্রতাপচাঁদ জহুরী, যিনি থিয়েটারকে ব্যবসা হিসেবেই দেখতেন । কথিত আছে বিনোদিনীকে থিয়েটার ছেড়ে দিতে ধনী যুবক গুর্মুখ রায়ের ৫০,০০০ টাকার প্রস্তাব দেন । বিনোদিনী প্রস্তাবে না হয়ে বরং বাংলা থিয়েটারের উন্নতির জন্য নতুন থিয়েটার খুলতে রাজি হন এবং একই সাথে গুর্মুখ রায়ের রক্ষিতা হতেও রাজি হন ।

তার অধীনে কাজ করা গিরিশ ঘোষ এবং বিনোদিনী কার পক্ষেই বনিবনা হচ্ছিলনা । তারা আলাদা করে স্টার থিয়েটার গড়ে তোলেন । বিনোদিনী গিরিশচন্দ্র ঘোষ কে নিজের গুরু এবং দেবতা বলে আত্মজীবনীতে উল্লেখ করেন । তাঁর কাছেই তিনি উঁচুমানসম্পন্ন অভিনয় কলা শেখেন । রক্ষিতা হিসেবে তিনি বিনোদিনী দাসীকে গভীরভাবে ভালোবাসতেন । কিন্তু স্টার থিয়েটার গড়ে তোলার জন্যে যিনি অর্থ দিয়েছিলেন, নিজের প্রেমিক গিরিশচন্দ্র ঘোষকে ছেড়ে বিনোদিনীকে তাঁর রক্ষিতা হতে হয় ।



স্টার থিয়েটারে কাজ করার সময় তিনি খ্যাতির তুঙ্গে ছিলেন । এ অবস্থায় গিরিশচন্দ্রসহ তাঁর সহকর্মীদের বিরোধিতার মুখে উক্ত থিয়েটারে বিনোদিনীর পক্ষে তিন বছরের বেশি সময় কাজ করা সম্ভব হয়নি । বিনোদিনীর ইচ্ছা ছিল যে নতুন থিয়েটার তৈরি হবে তা বিনোদিনীর নামে বি-থিয়েটার হবে । কিন্তু কিছু মানুষের প্রতারনার শিকার তিনি হন । যাঁদের মধ্যে তাঁর নিজের অভিনয় গুরু গিরিশচন্দ্রও ছিলেন । বিনোদিনীর ত্যাগ স্বীকারে যে নতুন থিয়েটার তৈরি হয় বিনোদিনীর নাম তাতে থাকেনি । এই নতুন থিয়েটারের নাম হয় স্টার থিয়েটার ।

Wednesday, December 25, 2013

শাড়ি পরার ডিজাইন

শাড়ি ভারতীয় উপমহাদেশের নারীর পরিধেয় বস্ত্র বিশেষ। কখন কীভাবে শাড়ি উদ্ভূত হয়েছিল সে ইতিহাস খুব একটা স্পষ্ট নয়। তবে আবহমান বাংলার ইতিহাসে শাড়ির স্থান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। যুগে যুগে বদলিয়েছে শাড়ির পাড়-অাঁচল, পরার ধরন আর বুনন কৌশল। শাড়ি শব্দের উৎস সংস্কৃত ‘শাটী’ শব্দ থেকে। ‘শাটী’ অর্থ পরিধেয় বস্ত্র।

ইতিহাসবিদ রমেশচন্দ্র মজুমদার প্রাচীন ভারতের পোশাক সম্পর্কে মন্তব্য করেছেন যে তখন মেয়েরা আংটি, দুল, হার এসবের সঙ্গে পায়ের গোছা পর্যন্ত শাড়ি পরিধান করত, উপরে জড়ানো থাকত আধনা (আধখানা)। পাহাড়পুরের পাল আমলের কিছু ভাস্কর্য দেখেই তা অনুমান করা যায়। এই তথ্য অনুযায়ী বলা যায় যে, অষ্টম শতাব্দীতে শাড়ি ছিল প্রচলিত পোশাক।

ইতিহাসবিদ নীহাররঞ্জন রায়ের মতে, দক্ষিণ ও পশ্চিম ভারতে সেলাই করা কাপড় পরার রেওয়াজ আদিম কালে ছিল না। এই সেলাইবিহিন অখন্ড বস্ত্র পুরুষের ক্ষেত্রে ‘ধুতি’ এবং মেয়েদের বেলায় ‘শাড়ি’ নামে অভিহিত হয়। বয়ন শিল্পের উৎপত্তির সঙ্গে শাড়ির সংযোগ রয়েছে। তখন যেহেতু সেলাই করার কৌশল জানা ছিল না তাই সেলাই ছাড়া টুকরা কাপড় পরাই ছিল শাস্ত্রীয় বিধান। এ সময়ে সেলাই ছাড়া কাপড় পরার রেওয়াজ উপমহাদেশের বাইরেও প্রচলিত ছিল। পৃথিবীর অন্যান্য সভ্যতায়, যেমন মিশর, রোম, গ্রিস-এ সেলাই ছাড়া বস্ত্র ঐতিহ্য হিসেবেই চালু ছিল।

সেলাই করার জ্ঞান লাভ হওয়ার পর এই অখন্ড বস্ত্রই নানা এলাকায় বিচিত্ররূপে ও বিভিন্ন নামে রূপান্তরিত ও আদৃত হয়, যেমন ঘাগরা, সালোয়ার, কুর্তা, কামিজ প্রভৃতি। কিন্তু কয়েকটি এলাকায় ওই বসনখন্ড সেলাই ছাড়াই টিকে যায়। এসব এলাকা হচ্ছে আজকের বাংলাদেশ, ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, উড়িষ্যা, আসাম, কেরালা, কর্ণাটক, তামিলনাড়ু, মহারাষ্ট্র, অন্ধ্র প্রদেশ, গুজরাট, উত্তর প্রদেশ, হিমাচল প্রদেশ, বিহার, পাঞ্জাব এবং পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশ ও পাঞ্জাব। তাই বলা যায়, শাড়ি একমাত্র বাঙালি নারীর পরিধেয় নয়, যদিও বর্তমান যুগে বিশেষভাবে বাঙালি রমণীর পোশাক হিসেবেই শাড়ির অধিক পরিচিতি।

জামদানি শাড়ি
টাঙ্গাইলের তাঁতের শাড়ি
সুতি শাড়ি, ব্লক প্রিন্ট
রাজশাহী সিল্ক
সুতি শাড়ি

আজকের শাড়ি অখন্ড হলেও তার সঙ্গে যোগ হয়েছে আরও বস্ত্র যা সেলাই করা অর্থাৎ অখন্ড নয়। শুধু শাড়ি পরার প্রথা আজ আর নেই, এর সঙ্গে অনিবার্য অনুষঙ্গ হিসেবে এসেছে ব্লাউজ এবং সেই সঙ্গে পেটিকোট বা সায়া নামের অন্তর্বাস। আদিকালে বর্তমান যুগের মতো শাড়ি পরার কায়দা ছিল না। কালিদাসের শকুন্তলার শাড়ি আর ভারতচন্দ্র-এর বিদ্যাসুন্দর কাব্যের নায়িকা বিদ্যার শাড়ি এক নয়। এ ভিন্নতা শুধু শাড়ির বৈচিত্র্যে নয়, শাড়ি পরার ধরনেও। এক কালে শাড়ি পরার দুটি ধরন ছিল, আটপৌরে ও পোশাকি।

মেয়েরা শাড়ি পরত কোমর জড়িয়ে, পরার ধরন অনেকটা পুরুষের ধুতি পরার মতোই, যদিও পুরুষের মতো মেয়েদের পরিধেয়তে সাধারণত কোন কাছা থাকত না। আদিকালের বসনের মতো আজকের শাড়িও একখন্ড বস্ত্র যা দশ, এগারো কি বারো হাতের। শাড়ি পরার ধরনও সব জায়গায় এক নয়। কেরালা, কর্ণাটক, তামিলনাড়ু, উত্তর প্রদেশ, বাংলাদেশ ইত্যাদি জায়গায় শাড়ি পরার কায়দায় নিজ নিজ এলাকার বৈশিষ্ট্য প্রতিফলিত। শাড়ি পরায় পার্থক্য আছে বিভিন্ন শ্রেণি ও জীবিকাধারীর মধ্যেও। শাড়ির ইতিহাসের মতোই আছে শাড়ি পরার ধরনেরও ইতিহাস।



মূলত শাড়ি পরার আদলে আমূল পরিবর্তন ঘটে সেলাই অর্থাৎ সিয়ান শিল্প আবিষ্কারের পর থেকে। প্রাচীনকালে নারীর অধোবাসের একটু অংশ (বা বাড়তি অংশ) সামনে অথবা পেছনে ঝুলিয়ে রাখা হতো। কালক্রমে তা-ই বক্ষাবরণের উপরে স্থাপিত হতে থাকে এবং আরও পরে অবগুণ্ঠনের প্রয়োজনে মাথায় স্থান পায়। সিয়ান শিল্প আবিষ্কারের পর ব্যবহূত হয় ব্লাউজ। কিন্তু তারও আগে ছিল সেমিজ। সেমিজের দ্বিখন্ডিত রূপ-ই ব্লাউজ ও পেটিকোট। এসবই অন্তর্বাস ও অনুষঙ্গ হিসেবে সংযোজিত। দুবার জড়িয়ে অর্থাৎ দুপ্যাঁচ দিয়ে পরার ধরনটি বলতে গেলে নগরাঞ্চল থেকে উঠেই যায়।

সেমিজ বা পেটিকোটের উপর শাড়িটিকে গিঠ দিয়ে প্রথমে ডানে পরে বাঁয়ে লম্বা ভাঁজ দিয়ে জড়িয়ে টেনে এনে ডান হাতের নিচ দিয়ে আলগা করে বাঁ কাঁধে অাঁচলের সামান্য অংশ রাখার যে ধরন, তার নাম ‘এক প্যাঁচ’। এ ধরন চালু ছিল সুদীর্ঘকাল। এক প্যাঁচ ধরনের শাড়ি পরার অনেক সুবিধা ছিল একদিকে পর্দা রক্ষা, অন্যদিকে সংসারের কাজের সুবিধা। প্রয়োজনে ঢিলা অাঁচল কোমরে জড়িয়ে নেওয়া গেছে, সন্তান লালনে-পালনে ও শীত-বর্ষায় লম্বা অাঁচল মায়ের কাজে লেগেছে।

পরবর্তীকালে এ ধরনও পরিবর্তিত হয়েছে। পরার ধরনে এসেছে ‘কুচি পদ্ধতি’। এ পদ্ধতিতে শাড়িকে কোমরে পেঁচিয়ে সামনের অংশে কুচি পেটের উপর দিয়ে লতিয়ে বুক ঘিরে ছন্দোময় ভঙ্গিতে উপরে তুলে বাঁ কাঁধ ছুঁয়ে অাঁচলটিকে পিঠে ছেড়ে দেওয়া হয়। এভাবে পরা শাড়ির অাঁচল দ্বারা অবগুণ্ঠনের কাজও হয়। একালের অবগুণ্ঠনের স্টাইল আগের মতো নয়। অবগুণ্ঠন মানে আর মুড়ি ঘোমটা নয়, তা আব্রুর মাধ্যমে সৌন্দর্য পরিস্ফুট করার পন্থা।

এখন অবগুণ্ঠন মানে মাথার তালুর কাছে আলতো করে অাঁচল তুলে দেওয়া। শাড়ির ‘কুচি’র প্রাথমিক চিন্তা এসেছে অবাঙালির কাছ থেকে। ঘাগরার ঘেরাও কুচির প্রভাবই লক্ষ্য করা যায় শাড়ির কুচিতে। উল্লেখ্য, ঘাগরা কুচি দিয়ে সেলাই করা অধোবাস। শাড়িকে পরিধেয় হিসেবে গ্রহণ করেছেন

এমন অবাঙালিরাই প্রথমে কুচি পদ্ধতি চালু করেন। ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষার্ধ ও বিংশ শতাব্দীর প্রথমার্ধ পর্যন্ত শাড়ির কুচির এ স্টাইল চালু ছিল। অাঁচল লম্বা করে রাখা হতো মাথায় ঘোমটা দেওয়ার জন্য। ক্রমে ক্রমে শাড়ির কুচির অংশ বাড়তে থাকে, শাড়ি গায়ের সঙ্গে টেনে পরা হতে থাকে, কমে আসতে শুরু করে শাড়ির ঢিলে-ঢালা কায়দাটি; কোমর, বুক পিঠ সর্বত্র শাড়ির অবস্থান হয়ে ওঠে টান টান, বিন্যস্ত, পরিপাটি, কুচির ধরনও পাল্টাতে থাকে। শাড়ির আদি পর্বে কুচি ছিল সামনের দিকে প্রস্ফুটিত ফুলের মতো ছড়িয়ে দেওয়া, পরে তার ভঙ্গি হয় একের পর এক ভাঁজ দিয়ে সুবিন্যস্ত করা।

এ কুচি পদ্ধতি বাঙালি সমাজে শুরুতে সমালোচিত হয়েছিল। যারা সাহস করে পরেছেন তাদের খ্রিস্টান, ব্রাহ্ম কিংবা হিন্দুস্থানি বলে কটাক্ষ করা হতো। তবে বাঙালি সমাজে শিক্ষিতা ও আধুনিকা মেয়েরাই এ পদ্ধতি আগে গ্রহণ করে। কুচি পদ্ধতিকে প্রায় আজকের রূপে প্রথম চালু করেন জোড়াসাঁকোর ঠাকুর পরিবারের মেয়েরা। কেবল রূপদান নয়, বাঙালি সমাজে এ প্রথাকে জনপ্রিয় করার কৃতিত্বও তাদের। তবে ‘এক প্যাঁচ’ প্রথা আজও অবলুপ্ত নয়। প্রবীণ মহিলারা এর চল অব্যাহত রেখেছেন, তরুণীরাও বিশেষ বিশেষ অনুষ্ঠানে সখ করে এভাবে শাড়ি পরে। এক প্যাঁচ ধরনটি বিশেষ স্থান দখল করে আছে শহরতলি ও পল্লী এলাকা জুড়ে।

Sunday, December 22, 2013

Moulin Rouge


The dimly lighted Moulin Rouge one of the places to unwind with live music in Park Street is still the essence of old kolkata's version of the real Moulin Rouge in Paris, complete with the trademark windmill at its entrance and is one of the oldest popular night spots and dining restaurants of kolkata.

Saturday, December 21, 2013

শান্তিনিকেতন - ভ্রমন, ইতিহাস, বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়

দেশজুড়ে পর্যটনের তালিকায় বহুদিন আগেই পাকাপাকি ঠাঁই করে নিয়েছে রবি ঠাকুরের শান্তিনিকেতন। রবীন্দ্রনাথ ১৯০১ সালের ডিসেম্বরে প্রাচ্যের প্রথম নব্য বিদ্যালয়ের স্থাপনকর্তাও বটে। তাঁর পিতৃদেব ১৮৬৩ সালে কলকাতা থেকে ১৬০ কিলোমিটার দূরে একটি জমি কেনেন–রবীন্দ্রনাথের বয়স তখন মাত্র দুই্, পরে এখানেই ১৯০১ সালে প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পালিয়ে আসা, গৃহশিক্ষকদের দ্বারা শিক্ষিত রবীন্দ্রনাথ তৈরী করলেন এমন এক বিদ্যালয় যেখানে শিশুদের তাঁর মত শোচনীয় শিক্ষাপ্রণালীর যন্ত্রণা ভোগ করতে হবে না।

সুন্দর ও তাৎপর্যপূর্ণ শান্তিনিকেতন নামে আজও এই বিদ্যালয়ের ক্লাস বসে মুক্ত হাওয়ায়, একশ বছরের পুরনো গাছের তলায়, পাখীয় গান শুনতে শুনতে আর রঙ বেরঙের ফুলের সুগন্ধে মাতোয়ারা হয়ে। এই বিদ্যাস্থলটি এক পরম আশ্চর্য এবং ইউনেস্কো যদি একে মানবজাতির সম্পদ বলে ঘোষণা করে তবে তা যোগ্য সম্মান হবে। এখানে ২৫ বর্গ কিলোমিটারেরও বেশি জায়গা জুড়ে আছে অসংখ্য শিশু শিক্ষালয় প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বৃত্তিমূলক শিক্ষাকেন্দ্র, হস্তকলাশিক্ষাকেন্দ্র ও বিশ্বভারতী নামে এক আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয় যাতে চৌদ্দটিরও বেশি শিক্ষাবিভাগ আছে। এই চৌদ্দটি বিভাগের মধ্যে চারুকলা, সংগীত, নৃত্য ও নাট্য বিভাগ সব থেকে প্রাচীন ও ঐতিহ্যমণ্ডিত।



এই স্বর্গস্বরূপ শিক্ষাক্ষেত্রের সব থেকে সুন্দর হল এর পরিবেশ। এটা সম্ভব কারণ রবীন্দ্রনাথ স্বয়ং এর সম্বন্ধে বলেছেন যে এই বিদ্যালয় একটি নীড়, কোনো পিঞ্জর নয়। এখানে রবীন্দ্রনাথের হৃদয়বৃত্তি, সত্য ও সুন্দর সম্পর্কিত সব নীতি কাজে পরিণত করা হয় আর ছাত্রদের শিক্ষা দেওয়া হয় ঔদার্যের, সত্যকথনের, শান্তির, একে অপরকে ভালোবাসতে, প্রকৃতিকে ভালোবাসতে, অন্য ধর্মকে, অন্য সভ্যতাকে, অন্য জাতিকে, অন্য দর্শনকে (যা জীবন হরণের শিক্ষা দেয় না) শ্রদ্ধা করতে। রবীন্দ্রনাথের শিক্ষাভাবনা, শান্তিভাবনা ও দর্শনচিন্তা আলোকিত করতে পারে আমাদের আজকের এই বিশ্বকে–যেখানে মানবিকতা অনুপস্থিত।

পশ্চিমবঙ্গে পর্যটনের অন্যতম প্রধান আকর্ষণ অবশ্যই শান্তিনিকেতনের আশ্রমিক পরিবেশ তথা বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়। এছাড়াও শান্তিনিকেতনের গ্রামাঞ্চল এবং পার্শ্ববর্তী জঙ্গলগুলি সহ কোপাই-খোয়াই শহুরে পর্যটকদের বিশেষ পছন্দের তালিকায় রয়েছে। সপ্তাহান্তে দুটি ছুটির দিনে হাট বসে সোনাঝুরি জঙ্গলে। পৌষ মেলা বা বসন্ত উৎসব ছাড়াও তাই বছরভর শহুরে পর্যটকদের আনাগোনা লেগেই থাকে। তবে শনি-রবিবার অর্থাৎ উইকএন্ডে ভিড়টা থাকে চোখ পড়ার মতো।

Friday, December 20, 2013

Citizens Park


Mohor Kunja Citizens Park named after Mohor di located on Cathedral Road by the side of Victoria Memorial near to rabindra sadan metro and maidan metro station is a public urban park in Kolkata set up in 2005. A city park, also called urban park, public park, or other similar names, it is a green area is located within the city or in its immediate vicinity, with the aim of providing to the citizens and other visitors to a recreational area in contact with nature.

Monday, December 16, 2013

Flurys Tearoom



The Flurys Tearoom is located in Park Street. This Hall was founded in 1926 by Mr and Mrs J Flury from which it took its name, an English couple from a wealthy family. Their thoughts had turned to open a tearoom and reading for the many Anglo Saxons in the capital. At the time of the founding of Flurys, tearoom is still run by the descendants of Flurys.

Sunday, December 15, 2013

National University of Juridical Sciences


The West Bengal National University of Juridical Sciences NUJS. The law is the study of law, and by extension the criteria used by the courts in applying the rules, as well as all the judgments delivered by the courts.

Saturday, December 14, 2013

Presidency College University


Presidency University earlier Hindu College and Presidency College a public state university one of the first institutes of Western type higher education in Asia is one of the premier institutes of learning of liberal arts and sciences in India and one of the top ranked institutions. Founded by Raja Ram Mohan Roy and established in 1817, it is the oldest educational institution in India.

Monday, December 9, 2013

Shaheed Minar


The Shaheed Minar, also known as Ochterlony monument, or simply the monument is an important monument of the city dedicated to a general of the British East India Company, best known for his key role in the war between the British and the Marathas who actually delivered to the almost total control of the British in India.

Sudder Street


Sudder Street is a street where you can find room in Historic Inns that are cheaper to find accommodation to your liking. Around Sudder Street are also most of the traditional restaurants, where to eat a good thali Western style. The restaurants also has wi- fi signal. Around Sudder Street no shortage ATMs, supermarkets, internet cafes and craft shops. A few minutes walk is the Indian Museum, and walking some more, the Maidan park, place of recreation for people of Kolkata.

Darjeeling Toy Train


Darjeeling is a popular tourist destination, reachable from Kolkata with a short transfer by plane or a scenic train ride that lasts about twelve hours. The hill station is famous for its black tea and its extraordinary scenic beauty with its charming Victorian style buildings. A romantic journey of 8 hours on what is also known as Toy Train, which will take you from Siliguri, at the foot of the eastern Himalayas, at the station of Darjeeling and has views of the highest peaks of the Himalayas.

কাটি রোল রেসিপি

বিকেলের নাস্তায় বা আড্ডায় সকলেরই পছন্দের স্ন্যাকস হচ্ছে কাটি রোল। বিশেষ করে বাচ্চাদের তো খুবই পছন্দের এই কুড়মুড়ে মজাদার স্প্রিং রোল। কিন্তু একই কাটি রোল আর কতোদিন খাবেন বলুন। আজকে চলুন না শিখে নেয়া যাক চেনা কাটি রোলের সম্পূর্ণ নতুন ভিন্ন একটি স্বাদ। শিখে নিন মজাদার কাটি রোল তৈরির সবচাইতে সহজ রেসিপিটি।

মুরগি মাংসের যেকোন খাবার খেতে দারুন লাগে। মুরগি মাংস দিয়ে নানা খাবার তৈরি করা যায়। বাচ্চাদের টিফিনে কি খাবার দেবে তা নিয়ে মায়েদের চিন্তার শেষ নেই। বাচ্চাদের টিফিনের সমস্যা সমাধান করে দেবে চিকেন কাঠি রোল। সহজে অল্প কিছু উপকরণ দিয়ে এই কাবাবটি তৈরি করে নিন।



খাসির মাংস ও পরোটা দিয়ে মজাদার কাঠি কাবাব রোল তৈরি করে ফেলতে পারেন দুপুর অথবা রাতের খাবারের জন্য। সুস্বাদু আইটেমটি নিয়ে যেতে পারবেন অফিসেও। জেনে নিন কীভাবে তৈরি করবেন কাঠি কাবাব রোল-

উপকরণ

খাসির মাংস- ৩০০ গ্রাম
মাখন- ৪ চা চামচ
লেবুর রস- ২ টেবিল চামচ
ধনেপাতা কুচি- ১ মুঠো
চাট মসলা গুঁড়া- ১/৪ চা চামচ
পরোটা- ২টি
লবণ- স্বাদ মতো
পেঁয়াজ- ১ স্লাইস
কাঁচামরিচ- ১টি (কুচি)
কাঁচা পেঁপে কুচি- ১ চা চামচ
ম্যারিনেটের উপকরণ
আদা বাটা- ১ চা চামচ
টক দই- ১০০ গ্রাম
ধনে গুঁড়া- ১/২ চা চামচ
লেবুর রস- ১ টেবিল চামচ
তেল- ২ চা চামচ
রসুন বাটা- ১ চা চামচ
মরিচ গুঁড়া- ২ চিমটি
গরম মশলা গুঁড়া- ১/২ চা চামচ
কাঁচামরিচ- ১টি (কুচি)

প্রস্তুত প্রণালি

একটি পাত্রে হাড়ছাড়া খাসির মাংস নিন। ম্যারিনেটের সব উপকরণ একসঙ্গে মেশান। ম্যারিনেট করা মাংস সারারাত রেখে নিন ফ্রিজে। ১ চা চামচ কাঁচা পেঁপে মাংসে মিশিয়ে দিন। এতে দ্রুত সেদ্ধ হবে মাংস।

একটি গভীর পাত্রে মাখন গরম করে মাংস ও সামান্য লবণ ছিটিয়ে নিন। পেঁয়াজ কুচি, কাঁচামরিচ কুচি, লেবুর রস ও চাট মসলা দিয়ে নেড়ে পাত্র ঢেকে নিন। মাঝারি আঁচে রান্না করুন। মাংস নরম হওয়া পর্যন্ত রাখুন চুলায়। শুকিয়ে গেলে সামান্য পানি দিতে পারেন। তবে মাংস যেন অতিরিক্ত নরম না হয় সেদিকে লক্ষ রাখবেন।

আরেকটি পাত্রে ঘি গরম করে পরোটা ভাজুন। মাংসের মিশ্রণ পরোটার মাঝে রেখে রোল করে নিন। ধনেপাতা চাটনির সঙ্গে গরম গরম পরিবেশন করুন মজাদার কাঠি কাবাব রোল।

Victoria Memorial Calcutta


The Victoria Memorial is probably the most famous monument in Calcutta and was built between 1906 and 1921 in honor of Queen Victoria, Empress of British India. It is located in the center of beautiful gardens in the area of the Maidan, which was the heart of the British Calcutta, with its parks, the Fort William and the Cathedral of St. Paul.

Sunday, December 8, 2013

Princep Ghat


The Princep Ghat was built in the everlasting memory of James Princep, a researcher and past Secretary of the Asiatic Society here. The Ghat was opened to public in the year 1843 and is one of Kolkata's oldest recreation spot. In its initial years, all the royal British entourages used the Princep Ghat jetty for embarkation/disembarkation.

Tuesday, December 3, 2013

Kolkata Maidan

Kolkata Maidan

Kolkata is a city chaotic, full of traffic, pollution, noise and odors, which, although in my opinion can give the charm to a city so, it can become suffocating after a while. Like any big city in India, Calcutta has among its attractions a huge park, the size and the location could be considered the Central Park in India, where locals and visitors who come here find a safe haven where the air is cool and do not think for a few minutes to the city that offers them shelter.

Monday, December 2, 2013

Blood Donation Kolkata



Organ donation is a mission and a gesture of generosity that characterizes high humanity of a country and is catching many lost years with a recent increase of consent to donation. The same has given way to a form of collaboration is very important, which currently cover only but could very well involve the whole continent in a short time. It is connected via the internet all the eye bank in the country, or that archive that gathers data on donations related to the cornea tissue, blood groups, techniques, innovations, updates.

Sunday, December 1, 2013

Kolkata Summer


Usually in Bengal summer is a period of long holidays for students of all ages. The starting dates of the suspension of school activities is during June. In general, in the summer holidays begin in the first weeks of June, leading up to the first days of July for examinations are to be addressed even in the heat of the season, while generally the months of August and September are clear of any activity.

Saturday, November 30, 2013

Diamond Harbour

Diamond Harbour kolkata

Fifty miles south of downtown is the port of Calcutta, built in the colonial era where the river Hoogly flows into the Bay of Bengal. The road that leads to the Sanctuary of the Nature island of Lothian, go to Diamond Harbour. The modern port facilities are actually a little further south, on the opposite bank, dominated by massive oil refineries.

Sunday, November 24, 2013

Reserve Bank of India


Reserve Bank of India, the Central Bank of India was established on 1 April 1935 in Calcutta, during British rule, with the Reserve Bank of India Act of 1934 and nationalized in 1949. The general management of the Bank is exercised by the Central board of directors, composed of 20 members, the governor and four deputy governors, a government official of the Ministry of Finance, 10 directors appointed by the executive directors and 4 others, which represent the four local authorities based in Mumbai, Kolkata, Chennai and New Delhi.

Saturday, November 23, 2013

ইন্ডিয়ান বোটানিক্যাল গার্ডেন

ইন্ডিয়ান বোটানিক্যাল গার্ডেন কলকাতা শহর থেকে কয়েক পা দূরে। হাওড়ার শিবপুরে রয়েছে ঐতিহাসিক এই জাতীয় উদ্যানটি। কয়েকশো একর জায়গা জুড়ে অবস্থিত এই জাতীয় উদ্যানে ১৭,০০০ রেও বেশি একাধিক প্রজাতির গাছ রয়েছে। তবে বোটানিক্যাল গার্ডেনের অন্যতম আকর্ষণ গ্রেট ব্যানিয়ন ট্রি বা মহাবটবৃক্ষ।



বিশ্বের সবচেয়ে বেশি বিস্তৃত বটগাছ এই মহাবটবৃক্ষ। বটগাছটি এতই বিশাল, যে দেখলে মনে হবে আস্ত একটা জঙ্গল। প্রায় ৩.৫ স্কোয়্যার একর জায়গা জুড়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে বটগাছটি। পৃথিবীর প্রাচীনতম গাছ। গ্রেট ব্যানিয়ন ট্রি বা এই মহাবটবৃক্ষের বয়স ২৫০ বছর। ১৮৮৪ ও ১৮৮৬ সালের ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়েও কোনও ক্ষতি হয়নি এই গাছটির। বটগাছটির প্রায় ৩,৩০০ গুড়ি বিস্তীর্ণ জায়গা জুড়ে রয়েছে।

ভারতের উদ্ভিজ্জ সম্পদ প্রচারের উদ্দেশ্যে ১৭৮৬ সালে কলকাতার বোটানিক্যাল গার্ডেন হুগলী নদীর পাশে শিবপুরে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। বোটানিক্যাল গার্ডেন প্রায় ১১০ হেক্টর এলাকা জুড়ে বিস্তৃত এবং লুপ্তপ্রায় উদ্ভিদ ও গাছপালা নিয়ে গঠিত। এই উদ্যান প্রত্যহ সকাল ১০-টা থেকে সন্ধ্যা ৬-টা পর্যন্ত দর্শকদের জন্য খোলা থাকে।

Friday, November 22, 2013

Alipore Zoological Gardens


At Belvedere Road. Also known as the Alipore Zoo, is one of the major attractions of Calcutta. There was the only specimen of the giant tortoise Aldabra species now extinct. It is said that this specimen had completed its 250th birthday before expiring. There you can also see examples of deer of Manipur highly branched horns.

Thursday, November 21, 2013

World Environment Day


The World Environment Day is a public holiday proclaimed in  1972 by General Assembly of the United Nations and is celebrated every year on  June 5. Each edition has a theme as a common thread that binds all the global initiatives that take place in honor of the Environment. Last year the day was titled Think, Eat, Save.

Monday, November 18, 2013

Guru Nanak Jayanti


The Sikh community, settled in around the world, celebrate the birthday of his first guru in Sanskrit means disciple or learner in Punjabi language and means revealing, prophet. Guru Nanak was born in 1469, in Talwandi now Nankana Sahib, near Lahore since 1947, the year the division English, belongs to the Pakistani Punjab.

Sunday, November 17, 2013

Howrah Station


Situated on the west bank of the Hooghly River and linked to Kolkata by the Howrah Bridge, Howrah Railway Station is one of the largest railway terminals in the world and also the busiest and second oldest station and having one of the largest railway complexes in India. Initial plans for the first Howrah station were submitted by George Turnbull the Chief Engineer of the East Indian Railway Company on 17 June 1851 and completed by 1854.

Friday, November 15, 2013

কলকাতা ফুটবল লিগ

কলকাতা ফুটবল নিয়ে অনেক আলোচনা হয়, প্রায় প্রতিদিনই কোনো না কোনো বিষয়ে, ঘটি-বাঙ্গাল, ইতিহাস, ঐতিহ্য, ট্রফি এসব নিয়ে. আমি নিজেও লিখি বা অন্যরাও লেখেন, পড়ি, মতামত দেই. কিন্তু আজ স্কুলে বসে বসে ভাবছিলাম মোহনবাগানের একটি বিষয় নিয়ে সেই অর্থে আলোচনা প্রায় হয়নি. ঐতিঝ্যের নাম মোহনবাগান। কিছু না জানা তথ্য, যা বেশীর ভাগ মোহনবাগানীরাও জানেন না।

আপনারা জানেন ১৯১১ তে মোহনবাগান ইস্ট ইয়র্কশায়ার রেজিমেন্ট কে হারিয়েছিল। কিন্তু জানেন কি, এর ফলেই ব্রিটিশরা ১৯১১ তে রাজধানী কলকাতা থেকে দিল্লীতে সরিয়ে নেয়। বাঙাল-ঘটি যদি না থাকত তা হলে কলকাতার ফুটবল হয়ত এমন বাঁধনছেড়া উন্মাদনার জন্ম দিতে পারত না। এই সত্যকে সামনে রেখে যখন একটু সিরিয়াস আলোচনা করব ভাবছি তখনুই হঠাৎ মনে হল এই বহুপ্রচলিত শব্দদুটোর মানে কী, অথবা সত্যিই কোনও মানে আছে কিনা। হরিচরণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের বঙ্গীয় শব্দকোষ খুলে বাঙাল শব্দটা পাওয়া গেল, তার এক রকম মানেও পাওয়া গেল। জানা গেল বহু প্রাচীন একটা শব্দ।

ঘটি শব্দটা অবশ্যই পাওয়া গেল কিন্তু জলের পাত্র ছাড়া আর কোনও মানে পাওয়া গেল না। বাঙাল শব্দের অর্থ পূর্ববঙ্গের মানুষ, কেউ কেউ পূর্ববঙ্গের মুসলমান অর্থেও জানে। অর্থাৎ যে বাঙাল-ঘটি প্রসঙ্গ নিয়ে আমরা আলোচনা করতে চাইছি তাতে বাঙাল শব্দটা নিয়ে কোনও বিভ্রান্তি রইল না। কিন্তু ঘটি? ফুটবলকে কেন্দ্র করে যে ঘটি শব্দের জন্ম বা রচনা তার মানে তো আর ঘড়া বা জলের পাত্র নয়।

এই ঘটির মানে পশ্চিমবঙ্গের মানুষ- মোর প্রিসাইসলি, মোহনবাগানের সমর্থক। অর্থাৎ বোঝা যাচ্ছে, যে ঘটি শব্দটা ফুটবলকে ঘিরে ব্যবহৃত হয় তার কোনও আভিধানিক অস্তিত্বই নেই। সেই কারণেই বোধহয় ঘটিনামা বলে কোনও কিছু অঙ্কুরিত হতে পারেনি। আর বাঙালনামা অঙ্কুরিত হয়েছে, বিকশিত হয়েছে, ক্রমে প্রসারিত হয়েছে শাখাপ্রশাখায় এবং সুরভি ছড়িয়ে দিচ্ছে সারা বাংলা জুড়ে।

স্বাধীনতা বা দেশভাগের আগে থেকেই বহু বাঙালি পূর্ববঙ্গ ছেড়ে এ বঙ্গে চলে আসা শুরু করেছিলেন। যাঁরা চলে এলেন বা আসছিলেন তাঁরা খুব আনন্দের সঙ্গে বা উন্নততর জীবনের খোঁজে আসছিলেন তা তো নয়। নানা কারণে নিজেদের ভিটেতে আর থাকা যাচ্ছিল না। জমিজমা, বসতবাড়ি তো আর সঙ্গে নিয়ে আনা যায় না। যাঁরা আসছিলেন তাঁরা সবকিছু ছেড়েই আসছিলেন। এ বঙ্গে যে তাঁদের জন্য সবকিছু প্রস্তুত ছিল তা-ও নয়। বরঞ্চ চূড়ান্ত অনিশ্চয়তার অন্ধকার কাটিয়ে নতুন করে সেটল করার, নতুন করে বাঁচার লড়াই শুরু করতে হয়েছিল ছিন্নমূল এই মানুষগুলোকে।

ওভাবে দেশভাগ করে দিলে সাধারণ মানুষের এমনটাই দশা হয়। কিন্তু সুখের কথা এই যে এই বঙ্গে এসে ছিন্নমূল মানুষরা নতুন করে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার লড়াই করতে গিয়ে তাঁদের মননশীলতা, সংস্কৃতিচেতনা আর ক্রীড়াপ্রেমকে অক্ষুণ্ণ রাখতে পেরেছিলেন। ফলে, এই বঙ্গে নতুন করে গতি পেয়েছিল বামপন্থার চর্চা, প্রাণ পেয়েছিল রবীন্দ্রসঙ্গীত চর্চা আর উৎসাহ পেয়েছিল ইস্টবেঙ্গল ক্লাবকে সামনে রেখে ফুটবল খেলার উন্মাদনা। আমরা যদি পঞ্চাশ দশকের বাংলা সঙ্গীত আর তার পরের বাংলা সঙ্গীতের দিকে তাকাই তাহলে স্পষ্ট বোঝা যাবে যে পরবর্তী সময়ের বাংলা গানে রবীন্দ্রসঙ্গীতের প্রভাব কীভাবে পড়েছে। বাংলা আধুনিক গান বলতে যেটা বোঝায় সেই গানের কথায় এল পরিবর্তন এবং সুরেও এল সম্মোহনী ‘মেলডি’।

বামপন্থী আন্দোলন তরুণসমাজকে ছাত্রসমাজকে প্রভাবিত করতে শুরু করল। আর ফুটবল মাঠে এল পরিবর্তন। পঞ্চাশ দশকের আগে পর্যন্ত মোহনবাগান ভারতীয় ফুটবলের মুখ। ১৯১১ সালে ব্রিটিশ দলকে হারিয়ে জাতীয়তাবাদী আন্দোলনে ঝড় তুলেছিল মোহনবাগান। তার পর থেকে তারাই ভারতীয় ফুটবলের মূল প্রতিনিধি। তিরিশ দশকে মহামেডান স্পোর্টিং পর পর পাঁচবার লিগ চ্যাম্পিয়ন হয়ে ইংরেজ দলগুলোর ওপর আধিপত্য বিস্তার করেছিল।



কিন্তু ইস্টবেঙ্গলের সেভাবে কোনও জোরালো প্রতিনিধিত্ব ছিল না। পঞ্চাশ দশকের তথাকথিত ‘বাঙাল’ সমর্থকরা ইস্টবেঙ্গল দলকে উৎসাহ দিতে মাঠে নেমে যেতে শুরু করল। দলের পাঁচ দুরন্ত খেলোয়াড় ভেঙ্কটেশ, আপ্পারাও, ধনরাজ, আমেদ আর সালে- পঞ্চপাণ্ডব নামে বিখ্যাত হয়ে উঠল। ধীরে ধীরে ইস্টবেঙ্গল ফুটবলে মোহনবাগানের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে উজ্জ্বল হতে শুরু করল।

এভাবেই ষাটের দশক গড়িয়ে যেতে লাগল। কমিউনিস্ট পার্টি ভাগ হল, চারু মজুমদারের হাত ধরে নকশাল আন্দোলন দানা বাঁধল। দীর্ঘদিন ধরে রাজ্যের শাসনে থাকা কংগ্রেস ক্রমে বাংলায় ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছিল। কমিউনিস্ট পার্টির যে অংশের সঙ্গসদীয় গণতন্ত্রে আস্থা ছিল তাদের নেতা প্রমোদ দাশগুপ্ত ও জ্যোতি বসু নিজেদের শক্তি ও সংগঠনকে ক্রমে মজবুত করছিলেন। সব মিলিয়ে বাংলার রাজনৈতিক আবহাওয়া অস্থিরতার ঝড়ে টালমাটাল হয়ে উঠল। ছাত্রসমাজ ও তরুণসমাজের সামনে নেমে এল অনিশ্চয়তার অন্ধকার। এই অন্ধকারে বিভ্রান্তের মত ভেসে বেড়াচ্ছিল বাংলার তরুণসমাজ।

এই অনিশ্চয়তা আর বিভ্রান্তির অস্থিরতা কাটাতে তারা দিনের শেষে চলে আসত কলকাতা ময়দানে ফুটবল খেলা দেখতে। ইস্টবেঙ্গল বা মোহনবাগান বা মহামেডান স্পোর্টিং দলের রথে চেপে পছন্দের খেলোয়াড়ের সঙ্গে নিজেকে আইডেন্টিফাই করে জেতার স্বাদ, সাফল্যের আনন্দ পেতে চাইত তারা। সেটা সত্তর দশক। স্কুল-কলেজে পরীক্ষা হবে কিনা ঠিক নেই, ভবিষ্যতের কোনও স্থিরতা নেই, কখন পুলিশ ধরে নিয়ে যাবে জানা নেই- সারাদিন এই অনিশ্চয়তা ভারি করে তুলত তখনকার তরুণসমাজকে। ভেতরের জ্বালা জুড়োবার জন্য সাহিত্য, নাটকে ডুবে জেতে চাইত।

কিন্তু সেখানে তো সাফল্য বা ব্যর্থতার সঙ্গে নিজেকে মিশিয়ে ফেলা যায় না। তার জন্য খেলার মাঠটাই ছিল উপযুক্ত জায়গা। ছিন্নমূল পরিবারের বড়রা তো একধরণের অনিশ্চয়তা পার হয়ে এসেছে এবং সেই অনিশ্চয়তা পার হয়ে তারা প্রতিষ্ঠিতও হয়েছে বা হচ্ছে। তাদের পরবর্তী প্রজন্ম আবার সম্মুখীন হয়েছে অনিশ্চয়তার, সুদূরেও এমন কোণও আলোর ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছিলে না সত্তর দশকের গোড়ায় যার তাগিদে অন্ধকার পার হয়ে যাওয়া যায়। এমনই এক অনিশ্চিত, বিভ্রান্তিকর সময়ে খেলার মাঠ তাদের সাফল্যের স্বাদ দিত।

এই কারণেই বাংলায় তখন ফুটবল হয়ে উঠেছিল এর জনপ্রিয়।

Tuesday, November 12, 2013

স্পঞ্জ রসগোল্লা তৈরির পদ্ধতি ও রেসিপি

রসগোল্লা বানাবো ঘরে! আমরা অনেকেই এটা চিন্তাও করতে পারিনা। কিন্তু আপনি যদি জানেন এটা বানানো কতোটা সহজ তাহলে মিষ্টির দোকানে যাওয়ার আগে একবার হলেও ভাববেন। বিশেষ করে বাচ্চাদের কথা চিন্তা করে।

রসগোল্লা খেতে সবাই ভালোবাসেন এটা বলাই বাহুল্য। আজকাল অনেকেই বাড়িতে রসগোল্লা তৈরি করে থাকেন, রেসিপি অনেকেই জানেন। কিন্তু একটু লক্ষ্য করে দেখুন, বাড়িতে তৈরি বেশিরভাগ রসগোল্লাই কেমন যেন চ্যাপ্টা হয়ে যায় নিখুঁত গোল না হয়ে। কী সেই রহস্য? সে রহস্যের পর্দা উন্মোচন করতেই আমাদের এই বিশেষ লেখা। দেয়া হলো রসগোল্লা তৈরির সব চাইতে সহজ সেই সিক্রেট রেসিপি, যেটায় আপনার তৈরি রসগোল্লা হবে মিষ্টির দোকানের চাইতেও ভালো ও মজাদার। তাহলে জেনে নিই রসগোল্লা বানানোর সহজ রেসিপি

উপকরন:

ছানা-১ লিটার দুধের
ময়দা-১ কাপের ৪ ভাগের সামান্য কম বা ওই কাপের গলা কাপ
বেকিং সোডা- আধা চিমটি
চিনি- ২ কাপ
পানি - ১ কাপ
এলাচ বিচি গুড়া - ২ টা

প্রনালীঃ

১) প্রথমে ২ কাপ চিনি ও পানি ১ কাপ একটা ছড়ানো কিন্তু কিছু গভীর তলার পাতিলে নিয়ে জ্বাল দিবে নেড়ে নেড়ে, এই সিরাটা এমন হবে যে তর্জনি আঙ্গুল আর বুড়ো আঙ্গুলে সিরা নিয়ে আঙ্গুল সরিয়ে নিলে একটা সুতার মতো সিরা হবে দুই আঙ্গুলের মাঝে। এক তার সিরা বলে।

২)ছানা হাতের তালুতে ভালো করে ঘষে ঘষে মসৃন করে মাখবে, ১০-১৫ মিনিট, হাতে তেল আসলে আর দরকার নাই। এবার ময়দায় বেকিং সোডা দিয়ে ভালো করে মিশাও, এখন এই ময়দার মিক্স ও ১ চা চামচ চিনি দিয়ে মসৃন করে মাখানো ছানায় ভালো করে মিশাও, এবার ১০-১২ টা বা কম করে ছানা ভাগ করে ফাটা বিহীন বল করো যদি এলাচ বিচি গুড়া দাও তবে বলের ভেতর অল্প করে দিয়ে বল করবে, প্রয়োজনে সামান্য ঘি হাতে নিয়ে বল করতে পারো মসৃনতার জন্য।

৩) বল গুলো বলক তোলা সিরাতে ছেড়ে দাও, জ্বাল কম থাকতে পারে বা একটু বেশী থাকতে পারে তবে খেয়াল রাখো যেনো সিরার বলক থাকবে ও বলক এর ফেনা গুলো মিষ্টি গুলোকে ঢেকে রাখবে, ঢাকনা দিবে না, মিষ্টি আস্তে আস্তে ফুলতে থাকবে হাল্কা করে নেড়ে মিষ্টি গুলো মাঝামাঝি রাখার চেষ্টা করবে ৫ মিনিট পর বা মিষ্টি ডাবল পরিমানে ফুলে উঠলে এক কাপ ফুটানো গরম পানি দিবে। ১০ মিনিট পর মিষ্টি উল্টে দেবে ও আধা কাপ ফুটানো গরম পানি দিবে,আবার ৫ মিনিট পর আধা কাপ বা সিরাটা বেশী ঘন না হয় এর জন্য গরম পানি আধা কাপের মতো বা তার বেশী পানি প্রয়োজনে ঢালবে।

৪) মিষ্টি হতে ১৫-২০ মিনিট লাগবে, ১৫ মিনিটে ১ টা মিষ্টি তুলে মাঝে ভাগ করে যদি দেখো হয়ে গেছে তাহলে নামিয়ে ফেলবে। তবে নামানোর আগে সিরা যেনো ঘন না হয় নরমাল রসগোল্লার যেমন সিরা হয় তেমন রাখবে, সামান্য ঘন কিন্তু আঠালো হবে না।

৫) চুলা থেকে নামিয়ে ঢাকনা দিয়ে পাতিলের মিষ্টি ঠান্ডা হতে দেবে। ২-৩ ঘন্টা বা একটু বেশী সময় পর সার্ভ করবে।

৬)যদি রসগোল্লার মতো সফট করতে চাও তাহলে সিরাটা পাতলা রাখবে ২ কাপ চিনি ২ কাপ পানি দিয়ে চুলায় দিয়ে সামান্য ঘন হলে বলক আসা অবস্থায় মিষ্টি দিয়ে দিবে আর সিরা যেনো কমে না যায় তাই গরম পানি দিয়ে দিয়ে সিরাটা পাতলা রাখার চেষ্টা করবে।মানে আঠালো হতে দিবে না বা পানি বেশী টানবে না।

মিষ্টি জ্বাল দিতে দিতে বেশী ঘন করবে না মিষ্টি দেয়ার পর গরম পানি দিয়ে দিয়ে সিরাটা ঠিক রাখার চেষ্টা করবে। যদি নামানোর পর সিরা বেশী ঘন হয়ে যায় তাহলে ১ কাপ বা প্রোয়াজনমতো গরম পানি দিয়ে ১-২ মিনিট জ্বাল দিয়ে নামালে সিরা পাতলা হবে। সিরা বেশী ঘন হলে মিষ্টি শক্ত হয়ে যাবে যখন ঠান্ডা হবে।



ছানা তৈরী উপকরন

লিকুইড দুধ-১ লিটার
সিরকা/ ছেকে নেয়া লেবুর রস/ ছানার পানি (পুরোনো)- সিরকা ও লেবুর রস ২-৩ টেবিল চামচ সম পরিমান পানি দিয়ে মিশানো (লম্বা বড় লেবুর রস কখোনো বেশীও লাগতো পারে কারন সব লেবুতেই পর্যাপ্ত টক ভাব নাও থাকতে পারে)আর পুরোনো ছানার পানি যত লাগে ততটুকুই দিবে আধা কাপ করে একবারে ঢেলে ঢেলে।

প্রনালীঃ

১) ১ লিটার লিকুইড দুধ নেড়ে নেড়ে জ্বাল দাও, বলক উঠলে নামিয়ে রাখো, ৫-১০ মিনিট পর আধা চা চামচ করে করে সিরকা/ লেবুর রস দিবে আর আস্তে করে নাড়বে, যখন সবুজ পানি বের হবে তখন আর সিরকা দিতে হবে না, তবে যদি আরো লাগে তাহলে আরো দিবে সবুজ পানি আসা পর্যন্ত। দুধ কিন্তু আর চুলায় দিবেনা। ছানা হলে ১৫-২০ মিনিট পর ছানা ছাকবে।

২) একটা পাতলা নরম সুতি কাপড় যেটাতে রং উঠার সম্ভাবনা নাই সেটা একটা ঝাঝরির উপর নিয়ে, নিচে একটা পাতিল রেখে ছানার পানি ঝরাও, এই পানিটা ১ লিটার বোতলে রেখে ফ্রিজে রেখে দিতে পারো পরের বার ছানা বানাতে পারবে এটা দিয়ে।

৩) ছানার উপর কলের পানি ছেড়ে হাত দিয়ে নেড়ে নেড়ে ধুয়ে নাও তারপর পানি চেপে ফেলো, এভাবে দুবার করলে সিরকার বা লেবুর গন্ধ থাকবে না।

৪) এবার ছানা সহ কাপড় উঠিয়ে হাত দিয়ে চেপে চেপে পানি ঝরাও তবে এমন চাপ দিবে না যাতে ছানা বের হয়ে আসে, তারপর নরমাল বাতাস বয় এমন জায়গায় ঝুলিয়ে দাও কাপড়টা ১ ঘন্টার জন্য, আমি বারান্দাতে ঝুলিয়ে রাখি এতে বার বার পানি চিপতে হয় না ও সুন্দর পানি ঝরে যায়।

৫) ১ ঘন্টা পর হাত দিয়ে চেপে বাড়তি পানি বের করে ছানা বের করে নাও, ছানা থেকে কিছুটা ছানা এক হাতের তালুতে নিয়ে আরেক হাতের আঙ্গুল দিয়ে ৩-৪ সেকেন্ড ঘষে যদি একটা বল বানাতে পারো তাহলে বুঝবে ছানা রেডি ব্যবহারের জন্য। আর যদি হাতের সাথে লেগে যেতে চায় বুঝবে আরো পানি ঝরবে সেক্ষেত্রে ফ্যানের বাতাসে হাত দিয়ে নেড়ে নেড়ে আধা ঘন্টা রাখবে( হাত দিয়ে বার বার না নাড়লে ছানা শুকনা হয়ে যাবে) খেয়াল রেখো ছানা যেনো সফট থাকে। আর ছানা বেশী শুকনা লাগলে আধা বা ১ চা চামচ পানি দিয়ে মাখিয়ে নিতে পারো।

এরকম আরো মজাদার মিষ্টির রেসিপি পেতে আমাদের সাথেই থাকুন ।

Sunday, November 10, 2013

World No Tobacco Day


The World No Tobacco Day is an anniversary, celebrated annually on May 31, the purpose of which is to encourage people to abstain for at least 24 hours after the consumption of tobacco, inviting them to quit smoking permanently. It also serves to make the situation on the prevalence of tobacco use in the world and to bring the public about the negative effects that it brings on human health, reaching in extreme cases, death due to cancer, damage to the heart and movement, etc. In 2011, the World Health Organization has estimated that about six million people lose their lives each year due to smoking.

Saturday, November 9, 2013

Calcutta Tramways Company


The Kolkata tram is the oldest operating electric tram in Asia and the only city in India to have a tram network, which was the sole public transport until 1920. Started on 24th February 1873, Trams are light weight rail borne vehicles, running on tracks, primarily on the road. Trams were the brainchild of the then Viceroy of India, Lord Curzon.

Friday, November 8, 2013

Harvest Time


A paddy field on the outskirts of Bengal. Its the harvesting season now when the markets of Kolkata will be stocked with new rice grains, which is an essential food item here. In agriculture for harvest is the process of cutting and harvesting in the fields of ripe grain. Can be done by hand or with the aid of mechanical equipment. In the harvest hand tool used is the sickle .

Thursday, November 7, 2013

সিটি সেন্টার কলকাতা

কলকাতার সল্টলেকে গড়ে উঠেছে সিটি সেন্টার। একই ছাদের নিচে কেনাকাটা, আনন্দ-বিনোদন, খাবার-দাবারের বিশাল আয়োজন। প্রবাস জীবনে সৌদি আরবে এ ধরনের এলাহি কারবার দেখেছি। কলকাতায় মাত্র শুরু হয়েছে এ চর্চা। সিটি সেন্টারের স্থপতি চার্লস কোরিয়া। স্রেফ শপিং মল হিসেবে না-গড়ে সিটি সেন্টার পরিবার বা বন্ধুবান্ধব নিয়ে সময় কাটানোর বা আড্ডা দেওয়ার জায়গা হিসেবেই গড়ে উঠেছে।



Wednesday, November 6, 2013

Kolkata Port


In the 19th century Kolkata Port was the premier port which took over the responsibility in the wake of the aftermath of Second World War. It is situated on the left bank of the Hooghly River about 203 km (126 miles) upstream from the sea. The city of Kolkata, has a synergistic linkage with the port. Regular passenger ship services are also available to Port Blair for visiting the Andaman & Nicobar Islands which takes around 66 hours.

Tuesday, November 5, 2013

Kolkata Puppetry


Puppetry is that particular theatrical art that uses puppets, marionettes, shadows, objects such as stars of the theater and signs of a highly visual language and sensory. The term puppetry has emerged in the late 70s, as a generic term and summary, replacing puppet theater, often confused semantically with the theatrical animation and social development.

Saturday, November 2, 2013

Calcutta Metro Rail


After the expansion it will also be the first metro line in India to run under a river, which would cross the Hooghly river 32 metres below the water level. The term underground short now entered common usage of metro rail is a system of transportation fast mass type rail services for urban, thus characterized by a high frequency, and normally organized on the basis of fixed routes.

Thursday, October 31, 2013

Kolkata Airlines


During the 1970s Kolkata Airport, also known as Netaji Subhash Chandra Bose International Airport or Dum Dum Airport was the busiest airport in India with all major International airlines at that time operating from here. The first aircraft a Dakota-3 landed here in 1924 which was also operational during World War II. It was the first Cargo Terminal in the country to be commissioned in 1975.

Wednesday, October 30, 2013

Mamata Banerjee


Mamata Banerjee made history by becoming the first woman chief minister of West Bengal. Noted as a firebrand orator and popularly known as Didi meaning the elder sister to all her followers, she was the Railway Minister of the country before taking over as the CM. Banerjee started her political career in the seventies in the ranks of the Indian Congress Party, becoming member of parliament in 1984. From 1991 to 1993 she was Minister of Sport and Youth Affairs, during the government of PV Narasimha Rao.

Tuesday, October 29, 2013

Writers Building Mahakaran


The Writers Building Mahakaran started as early as 1690 is the secretariat building of the Government of West Bengal. In 1695, the hovels were destroyed by a thunderstorm. In 1706, the new one-storeyed building was built. It was redesigned by Thomas Lyon in 1780 and received its impressive Corinthian façade, an example of the Neo-Renaissance style, in 1889. There is a statue of Britannia atop the main entrance.

Saturday, October 26, 2013

College Street


The love for books is so strong in Kolkata that Kolkata has a kind of colony of books stores named by the College Street, where books of all types and genres are available. Dominating the center of the area is the College Square. The leafy walk surrounding the pool is occupied by various people spending their leisure time. Kolkata has also its association with notable authors like Max Muller, Ruskin Bond etc. It was here that three leading newspapers published Ruskin Bond's stories at the beginning of his career and set him on my path as an author.

Monday, October 21, 2013

World Telecommunication Day


World Telecommunication Day now renamed into World Information Society Day, is a tribute to this system and a day to focus on the importance of Information and Communication technologies. Graham Bell wanted the greeting on telephone to be Ahoy, which later was changed by Abraham Lincoln as Hello.

Sunday, October 20, 2013

Kolkata Buddha Purnima


The Vesak celebrates the birth, enlightenment and Parinirvana of the historical Buddha. In these days all over the world especially in Asia is celebrated Vesak also known as the Buddha Purnima Day, informally called Buddha's birthday, actually commemorates the birth, enlightenment and death of Gautama Buddha.

Friday, July 5, 2013

Shyambazar


Shyambazar is a neighbourhood in north Kolkata famous for its five point crossing. When Bengalis talk about Kosha Mangsho Spicy Mutton the name of Golbari of erstwhile New Punjabi Hotel pops out most of the times what one has been familiar with for 85 years at the Shyambazar five-point famous for the very dark coloured, spicy-sweet kosha mangsho. 

Saturday, June 8, 2013

Central Park


Central Park Banabitan situated at the centre of the Salt Lake in Bidhan Nagar is a Hexagonal shaped public urban park. It is the second largest open space in the city of Kolkata after the Maidan. It is a favorite hangout for wildlife enthusiasts. Central Park is an oasis for the residents of Salt Lake who live in the surrounding skyscrapers, and is one of the most popular parks in the city, thanks to his numerous appearances in films and television series. It is called the green lungs of Salt Lake.

Friday, May 24, 2013

East Bengal vs Mohun Bagan


The Mohun Bagan Athletic Club is a football club of Calcutta. Founded 15 August 1889, is the oldest club in the whole of Asia. The team has won three times in the National Football League the name by which it was known the Indian football championship between 1996 and 2007 in 1998, in 2000 and in 2002. It currently plays the First Division of the new Indian league, the I-League. In addition, the disputed Calcutta Football League, an event reserved for the formations of the metropolis, which is set 27 times.

Saturday, May 18, 2013

Bangla Band


Western influence has resulted in the emergence of the phenomenon of Bangla bands has existed as an independent genre for only about thirty years now from Bhoomi, Cactus, Fossils and Chandrabindoo being most popular of them. The term group in band or more properly musical ensemble means an artistic association comprised of people who play music together. It may refer to a set of professional or amateur musicians.

Friday, May 17, 2013

Kolkata Street Food


Kolkata Street Food a film shot by Chef Angus Denoon of Scottish origin with the passion of Indian street food. To shoot this documentary film, our chef director takes five years. A long layover in Calcutta, the city where he remains haunted by the culture of food, by the way used for cooking, from the colors of the dishes and the many smells that emanate from the pots along the crowded streets of the country.

Friday, May 10, 2013

Kolkata Flower Show


No beauty can challenge the beauty of flower such is the creation of nature. To brighten the mood with soothing fragrances and beautiful ambiance this winter weekend, vast arrays of flowers are on annual flower exhibition of Agri Horticultural Society of India, Alipore, Kolkata. Typically this event is held in the palace of Agri Horticultural Society, in the south-west of Kolkata, during the first of January. 

Sunday, April 28, 2013

Kolkata Metropolis


Kolkata is known to be bursting with an overwhelming 10 million people, Kolkata is busy and bustling. Something is always happening whether it is soccer, religious celebrations, concerts. It is located in a zone insane from the point of view of climate, including the Hooghly River, a creek and a marshy swamp. The location was chosen by the founder Job Charnock, the East India Company, for safety reasons, as it was surrounded by water.

Saturday, April 20, 2013

Gangor: a Woman of Bengal


Gangor, will be released in theaters on March 11, tells a story of women who have the courage to fight for the dignity of women. The story is based on the destructive relationship between a photojournalist urban middle class and the poverty of the rural dispossessed of his dignity.
Gangor is the story of a photojournalist Upin, posted in West Bengal for a report on exploitation and violence against women tribal.