Friday, November 30, 2012

নারিকেলের নাড়ু বানানোর নিয়ম ও রেসিপি

নারকেলের নাড়ু অনেকের কাছে নারকেলের লাড্ডু নামেও পরিচিত। প্রাচীন কালে গ্রামে-গঞ্জে বাঙ্গালির উত্সবের খাবারের একটি জনপ্রিয় আইটেম ছিলো এই নারিকেলের নাড়ু। গুড় ও নারিকেল দিয়ে তৈরী এই নাড়ু খেতে অত্যন্ত মুখরোচক এবং এর পুষ্টিগুণও অনেক। নারিকেলের নাড়ু তৈরিও খুব সোজা। আসুন দেখে নেয়া যাক খেজুরের গুড় দিয়ে বানানো নারিকেলের নাড়ুর রেসিপি।

নারকেল দিয়ে তো আমরা অনেক ধরনের নাড়ু বা লাড্ডু বানিয়ে থাকি।সবসময় একই রকম নাড়ু খেতে ভালো লাগে না,তাই না?তাই আজ আমি আপনাদেরকে নারকেল দিয়ে একটি ভিন্ন স্বাদের মজাদার নাড়ু বা লাড্ডু তৈরি করা শেখাবো।

নারকেলের নাড়ু খেতে কার না ভালো লাগে। আর এই সময় পূজার মিষ্টান্ন আইটেমে এর উপস্থিতি থাকা চাই-ই-চাই! খুব সহজ এবং নারকেল কুড়ানো থাকলে ঝটপট তৈরি করা যায়। এটা এতোই সুস্বাদু যে টপাটপ দু-তিনটা গ্রাস করে ফেলা যায়।তবে আর দেরি কেন? নারকেলের নাড়ুর প্রতি দুর্বলতা থাকলে ঝটপট তৈরি করে ফেলুন।

নাড়ুর কালার হালকা হবে।ডিপ কালার হলে দেখতে ভালো লাগবে না। রং মেশানোর সময় প্রথমে অবশ্যই এক ফোঁটা দিয়ে দেখতে হবে যে রং চাচ্ছেন সেটা ঠিক হয়েছে কিনা নাড়ুর উপর কোরানো নারকেল দিতে না চাইলে মাওয়ার গুঁড়ো দেয়া যাবে। তবে খুব বেশি দেয়া যাবে না তাহলে নাড়ুর কালার দেখা যাবে না ডেকোরেশন নিজের মত করে করা যাবে।

পূজায় খাবার-দাবারের তালিকায় নাড়ু থাকবে না, তাই কি হয়! নাড়ু ছাড়া পূজার খাবার অসম্পূর্ণই থেকে যায়। মিষ্টি ও মুখরোচক এই খাবারটি সবার কাছেই সমান প্রিয়। থাকলো নারিকেলের নাড়ু তৈরির রেসিপি-

narkel naru ladoo coconut balls

উপকরণ ও পরিমাণ

ফ্রেশ নারকেল কোরানো ২ কাপ
কনডেন্সড মিল্ক ১/৩ কাপ
এলাচ গুঁড়ো ১/৪ চা চামচ
ঘি ২ টেবিল চামচ
মাখন ১ টেবিল চামচ
ফুড কালার ২ ফোঁটা
ফ্রেশ নারকেল কোরানো প্রয়োজনমত
সুইট সিলভার বল

প্রস্তুত প্রণালী

# প্রথমে একটি সসপ্যানে বা পাতিলে ঘি+মাখন নিয়ে এরমধ্যে নারকেল কোরানো দিয়ে হালকা ভেজে নিতে হবে মিডিয়াম আঁচে।ভাজার সময় খেয়াল রাখতে হবে যেন নারকেল লাল রং না হয়।নারকেলের রং কিন্তু সাদা থাকতে হবে।

# তারপর নারকেল হালকা ভাজা হলে এরমধ্যে কনডেন্সড মিল্ক+এলাচ গুঁড়ো দিয়ে ভালো করে অনবরত নাড়তে হবে।নাড়ার সময় খেয়াল রাখতে হবে যেন পুড়ে না যায়।

# এরপর নাড়তে নাড়তে যখন নারকেল আঠালো হয়ে আসবে তখন চুলা থেকে নামিয়ে ঠান্ডা করতে হবে।

# তারপর ঠান্ডা হলে নারকেলকে ৩ ভাগে ভাগ করতে হবে এবং ৩ ভাগে ৩টি রং মেশাতে হবে।রং মেশানো হলে গোল শেপ করে কোরানো নারকেলের উপর নাড়ু গড়িয়ে নিতে হবে।তারপর নাড়ুর উপরে সুইট সিলভার বল দিয়ে ডেকোরেশন করতে হবে।

# এরপর নাড়ু ফ্রিজে ১ ঘন্টা রাখতে হবে।এক ঘন্টা পর ফ্রিজ থেকে নাড়ু বের করে পরিবেশন করা যাবে।

Thursday, November 29, 2012

Hooghly River Lights


An evening by the Hooghly river and Vidyasagar Setu. Hooghly River is majestic soaring well 4 bridges and yet the oldest among them, the Howrah Bridge also known as Rabindra Setu, in honor of the great poet Rabindranath Tagore still figure as the busiest in the city perhaps because, compared to the other three, the Vidyasagar Setu, the Vivekananda Setu and the Nivedita Setu guarantees free access.

Tuesday, November 27, 2012

গ্যাস বেলুন

এই শহরে এমন কিছু জিনিস আছে যাদের শুধু পুজোর সময়ই দেখতে পাওয়া যায়— বাদবাকি বছর তাদের টিকির দেখাও পাওয়া যায় না। এদের মধ্যে একটি হল গ্যাস বেলুন। অন্য বেলুনের সঙ্গে গ্যাস বেলুনের তফাত হল এই যে, এদের ছোট্ট মুখের সঙ্গে বাঁধা সুতোটি হাতে ধরে থাকলে এরা আকাশে উড়তে থাকে।আর এটাই তাদের ছোটদের চোখে আরও অ্যাট্রাকটিভ করে তোলে।

তবে যেকোনও আকর্ষণীয় জিনিসের যেমন একটা ঝামেলার দিক থাকে গ্যাস বেলুনও তার বাইরে নয়।কোনও ভাবে সুতোটা ফসকে গেলে এরা তার মালিকে ভুলে গিয়ে ভাসতে ভাসতে হারিয়ে যায় দূরের আকাশে।গ্যাসবেলুনওয়ালারা সব সময় একটি ছোট ঠ্যালা-গাড়ি নিয়ে দুগ্‌গা ঠাকুরের মণ্ডপের কাছে গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকেন।ওই গাড়ির মধ্যে একটি গোল-মাথার ধাতব সিলিন্ডার সোজা ভাবে রাখা থাকে।

যাতে ভরা-থাকে অদ্ভুত গন্ধওয়ালা হিলিয়াম গ্যাস। এই গ্যাসটি বাতাসের চেয়ে হালকা। তাই সিলিন্ডারের চাবি ঘুরিয়ে তা বেলুনে ঢোকালে বেলুনটি বাতাসে ভেসে থাকে।

Sunday, November 25, 2012

International Day of Families


International Day of the Family, founded by the United Nations in 1993. Thanks to the healthy family the state gets stronger and develops and the well being of people grows. At all times the level and character of development of the country has been judged o­n the attitude of the state to family, as well as its stand in a society. This is due to the fact that the happy union of family and the state is a necessary pledge of prosperity and well being of its citizens. Human life commences with family and then its formation as citizen takes place.

Friday, November 23, 2012

Communists in Bengal


Finally the curtains are down for the world's longest democratically-elected Communist government in a state. The people has ended the uninterrupted 34 year old rule of the Left Front to give power to the right wing forces. The opposition came with a landslide victory with the communists left to rubbles and wrest the seat of power in Bengal, the Writers Building for the next 5 years.

Wednesday, November 21, 2012

আম বাগান

ফলের রাজা। উপকারেও দারুণ। গরমের দিনে এই ফল খেয়েই রসনা তৃপ্ত করেন ভোজন রসিকরা। তা দিয়ে তৈরি হয় অনেক রকমারি পানীয়, যা গরমের দিনে অতিথি আপ্যায়নের জন্য নিতান্তই অপরিহার্য।

কোন ফলের কথা বলছি তা নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন। ফলের বাজারে এরই মধ্যে তার আনাগোনা তুঙ্গে। যেদিকে তাকাবেন পাকা হলুদ রঙের বাহারি আমের উপস্থিতি চোখে পড়ে যাবে। নামেই শুধু রাজা নন তিনি, গুণেও পটু। তার উপকারটা অনেক ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। বিশেষ করে স্বাস্থ্যের জন্য আমের উপকারের মাত্রাটা সীমাহীন।

হৃদরোগ থেকে শুরু করে অপরিপকস্ফতা, ক্যান্সার সারাতে আম মহৌষধি। আমের মধ্যে অত্যধিক আয়রন রয়েছে। গর্ভবতী থাকাকালীন যেসব মহিলা এনিমিয়া রোগে ভুগছেন তারা আম খেতে পারেন। এতে রক্তস্বল্পতা সহজেই দূর হয়ে যাবে। লোমকূপের ছিদ্র বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে ত্বক নিয়ে ভুগছেন? আমের টুকরো ত্বকে রগড়ে নিন। ১০ মিনিট পর তা ধুয়ে ফেলুন। সমস্যা থাকবে না।

বেশি মাত্রায় আম খান। অ্যাসিডিটির হাত থেকে রেহাই পাবেন। তাছাড়া উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রেও আমের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিদিনের খাবার মেন্যুতে আম রাখুন। গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে, কিডনিতে পাথর জমার ক্ষেত্রেও বাদ সাধে আম। তাই দেরি না করে গরমের সুস্বাদু ফলটা খেতে শুরু করে দিন এখনই।

আমের মধ্যে এমন প্রোটিন আছে, যা মনোযোগ ও স্মৃতিশক্তি বাড়িয়ে দেবে। অপরদিকে আমের মধ্যে ভিটামিন-ই রয়েছে, যা আপনার যৌন হরমোনকেও সতেজ করে দেবে।

গরমে এক গ্লাস কাঁচা আমের জুস এনে দেবে স্বস্তি।



কাঁচা আম ২ টি
বিট লবন সিকি চা চামচ ( ১/৪)
লবন আন্দাজ মত
চিনি ৪ টেবিল চামচ [আম টক কেমন সে অনুযায়ী চিনি কম বেশি দিতে পারেন ]
গোল মরিচ সিকি চা চামচ ( ১/৪)
ঠাণ্ডা পানি - ২ গ্লাস।

আম কুচি কুচি করে কেটে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন।এরপর সব একসাথে মিক্সড করে ৫ মিনিট ব্ল্যান্ড করুন। উপরে পাতলা কুচি করে অল্প কাঁচা মরিচ ছড়িয়ে দিন। আমের রস আর পানিতে ব্ল্যান্ড হয়ে তিন গ্লাস জুস হবে।

Monday, November 19, 2012

Chhath Puja at Babughat


During Chhath Puja celebration to worship God Sun, huge crowd can be seen on Babughat performing their puja. And after the light and the hope of prosperity wealth of Diwali comes also from the sun purifier. The Chhat festival is an important event in Nepal and many other countries of the subcontinent. A Hindu festival that has many interesting meanings.

Saturday, November 17, 2012

Grand Trunk Road


The Grand Trunk Road GT Road was initiated by, and later constructed and extended by Sher Shah Suri, who then ruled much of northern India. Grand Trunk Road , the road that Kipling in his novel Kim, calls the backbone of India and is, in fact, the only major thoroughfare, busy and colorful truck with all sorts of vehicles and animals, which leads from Calcutta to Kabul, along the Pakistan.

Friday, November 16, 2012

কার্তিক পূজা

দেব সেনাপতি সুদর্শন কার্তিক একজন পৌরণিক দেবতা। তিনি ভগবান শিব,মা দূর্গার পুত্র। ছয় জন মাতৃকা দেবী কৃত্তিকা তাঁকে ধাত্রীরূপে স্তন্যপান করিয়েছিলেন বলে তাঁর নাম হয় কার্তিকেয়। আমরা সংক্ষেপে বলি কার্তিক। তাঁর ভাইয়ের নাম গণেশ। দেবতা কার্তিক অত্যন্ত সুন্দর, সুঠাম দেহ এবং অসীম শক্তির অধিকারী। পুরাণে আছে তরকাসুরের আধিপত্য থেকে স্বর্গরাজ্য উদ্ধার করার জন্য স্বর্গের দেবতারা তাকে সেনাপতিরূপে বরণ করেছেন। তাঁর দেহাবরণ উত্তপ্ত স্বর্ণের মতো। এ কারণে তাঁকে ষড়ানন বলা হয়।



কার্তিকের ছয়টি আনন। আনন মানে মুখ। তবে তাঁর একটি মুখযুক্ত রূপই প্রচলিত। সে রূপেই তাঁকে পূজা করা হয়। যুদ্ধাস্ত্র হিসেবে কার্তিকের হাতে তীর, ধনুক ও বল্লম দেখা যায়। তার বাহন সুদৃশ্য পাখি ময়ূর। কার্তিক বিভিন্ন অসুরের সঙ্গে যুদ্ধ করেছেন। এ সকল যুদ্ধে তিনি জয় লাভ করেছিলেন। পুরাণ অনুসারে তারকাসুরকে বধ করার জন্য কার্তিকের জন্ম হয়েছিল। তিনি বলির পুত্র বাণাসুরকেও পরাজিত
করেছিলেন। কার্তিকের আরেক নাম স্কন্দ, মহাসেন, কুমার গুহ ইত্যাদি। স্কন্দ পুরাণ কার্তিককে নিয়ে রচনা করা হয়েছে। আজ কার্ত্তিক পূজা......।।

সকলকে জানাই কার্ত্তিক পূজার শুভেচ্ছা...।।

Thursday, November 8, 2012

Bengal Elections


It is Election time these days when volumes and tempers are in full pitch in Kolkata, because the city takes politics very seriously. Kolkata’s streets are filled with signs and flags for a staggering number of political parties. Women are a powerful force in Indian politics, although they are quite rare in the public sphere of urban life.

Tuesday, November 6, 2012

মাতৃ দিবস

আজ ৮ই মে। বিশ্ব মাতৃ দিবস। হিসাব অনুসারে মে মাসের ২য় রবিবার মা দিবস পালন করা হয়। মাকে কে কে ভালোবাসেন? এই প্রশ্নটা করলে আমি কতোটা হেয় হবো জানা আছে। মা কে ভালোবাসেনা এমন মানুষের সংখ্যা হয়তো নিতান্তই কম। ফেসবুক ব্যবহারকারীরা ২ ভাগে বিভক্ত। একদল মাতৃ দিবসের পক্ষে! অন্যদল বিপক্ষে। বিপক্ষে ঠিক বলবোনা। তাদের কথায় ও যুক্তি আছে। তারা বলতে চাচ্ছে বছরের ৩৬৫ দিনই আমরা মা কে ভালোবাসি। তাহলে একটা দিন এতো নাটকীয়তার কি প্রয়োজন?!

মাকে ফেসবুকে প্রেম দেখায়ে লাভ কি? মন থেকে ভালোবাসলেই হলো। এতো দেখানোর কি আছে? আমি মা কে ভালোবাসি এটা পৃথিবীর সামনে চেঁচিয়ে বললেই কি আমার ভালোবাসা প্রমাণিত হবে? কারোর যুক্তি খন্ডানোর নয়। যে যে যার যার জায়গায় একদম ঠিক।



একদিকে এটা যেমন ঠিক যে ভালোবাসা যেমন দেখানোর বিষয় নয় তেমনি অপরদিকে এটাও ঠিক যে আমরা চাইলেই যখন তখন মাকে মুখ ফুটে বলতে পারিনা। শুধু বলতে পারিনা এটাই আমাদের ব্যর্থতা। এই ব্যাপারগুলো বেশিরভাগ ঘটে থাকে মধ্যবিত্ত পরিবারে। তারা এতোটাই সীমাবদ্ধতার মধ্যে বড় হয় যে তাদের ভালোবাসার প্রকাশ টাও সীমাবদ্ধ। তারা হাজার চাইলেও মা বাবা কে ভালোবাসি বলতে একপা এগিয়ে আবার দশ পা পিছিয়ে আসে।

মধ্যবিত্ত পরিবারের সবকিছু এতোটাই কন্ট্রোলে থাকে যে কখন আমাদের ইমোশন গুলোও আমরা কন্ট্রোল করা শিখে যাই। আপনি বলতে পারছেন না তার মানে এই নয় যে আপনি আপনার মা কে ভালোবাসেন না। আবার আপনি বলতে পারেন তার মানে এই নয় যে আপনি লোক দেখানো কাজ করেন। বলতে পারা, না পারা সবটাই স্বাভাবিক।

Monday, November 5, 2012

Dakshineswar Temple


Dakshineswar built between 1847 and 1855, is an excellent example of Bengali architecture. Gadadhar Chattopadhyay, known as Sri Ramakrishna Paramahamsa was a mystic Indian. Ramakrishna was a prominent mystic, as well as a guru, famous for taking the various mystical paths of the world's major religions. His teachings emphasize self-realization as the highest goal of life, develop love and devotion for God , the oneness of existence, the harmony and the essential unity of religions .

The disciples of Ramakrishna, including Swami Vivekananda, gave birth to an order inter-religious, the Ramakrishna Mission, with the aim of spreading the idea of the oneness of the Divine and the validity of any religious path. At Kàmarpukur had spread the rumor that Ramakrishna had gone mad because of the intense spiritual asceticism to which he was subjected to Dakshineswar.

Ramakrishna, however, came to know and instead of opposing the marriage began to take an active interest in the choice of the bride indicating also the place where the bride and the family could be found the village of Jairambati about 5 km by Kámarpukur and the family of a certain Ramachandra Mukherjee. The bride, a girl of just six years old named Sarada Devi, was found. The marriage was celebrated solemnly, the bride returned to her father's house and Ramakrishna to Dakshineswar to resume his asceticism.

Sarada realized that the neighbors talked to each other of the misfortune that had befallen said that her husband had gone mad, and of course he was very upset. He decided to go to Dakshineswar and see for themselves the condition of her husband. She found it quite normal, remained with him for some time and then returned to Jayrambati; After a few years she was always beside him.

Sunday, November 4, 2012

টেংরা মাছের কারি রেসিপি.ও চিতল মাছের কোপ্তা কারি

নানা পদের মাছ খেতে কে না ভালবাসে! বাংলাদেশ একটি নদী মাত্রিক দেশ এবং আমরা সবাই মাছে ভাতে বাঙ্গালী! কিন্তু কত দিন আর এক রকম মাছ খাব? সেই একি তরকারি? আজকে চলুন চিতল মাছের কোপ্তা কারি রান্না করার একটি ভিন্ন পদ্ধতি জেনে নেই।



উপকরণ:

১টি মাঝারি আকারের চিতল মাছ
১ চা-চামচ পেঁয়াজ
১ চা-চামচ আদা
১ চা-চামচ ধনেবাটা
১ টেবিল চামচ বাটা কাজুবাদাম
২ চা-চামচ ঘি
১ চা-চামচ কেওড়া জল
২ কাপ দুধ
১ টেবিল চামচ মিষ্টি ও টক দই
১ টেবিল চামচ টমেটো সস
১ টেবিল চামচ চিনি
১ টেবিল চামচ লবণ
প্রয়োজনমতো কিশমিশ
সামান্য এলাচ ও দারচিনি

প্রনালিঃ

চিতল মাছটির কাঁটা বেছে তাতে স্বাদমতো জিরা, লবণ, গোলমরিচের গুঁড়া ও ১ টেবিল চামচ বেসন দিয়ে নিন। তারপর কাঁচা মরিচ ও পেঁয়াজ কুচি দিয়ে মেখে কোপ্তার আকারে গোল করে ভেজে নিতে হবে। ঘি গরম করার পর অল্প দুধ দিয়ে সব মসলা কষানো শেষে, দুধ দিয়ে তিন-চার মিনিট রান্না করুন।ভাজা কোপ্তা দিয়ে ওপরে হালকা কিশমিশ দিয়ে অল্প আঁচে এক মিনিট রেখে দিন, এবার ঘি ওপরে উঠে এলে নামিয়ে ফেলুন।



টেংরা মাছের কারি রেসিপি

উপকরণঃ

- মাঝারি ট্যাংরা মাছ ৫০০ গ্রাম
- মাঝারি পেঁয়াজ ২টা কুঁচোনো
- রসুন কুচি ১ চা চামচ
- হলুদ ১ চা চামচ
- মরিচ ১ চা চামচ (ঝাল কম খেলে কম দেবেন, বেশি খেলে বেশি)
- জিরা গুড়ো ১ চা চামচ
- কাঁচামরিচ ৪/৫টি অল্প চেরা
- ধনেপাতা কুচি
- লবণ
- তেল আন্দাজ মত।

প্রণালীঃ

প্যানে তেল গরম করে লবন দিয়ে পেঁয়াজ, রসুন হালকা বাদামি করে ভেজে নিন। ২ কাপ পানি দিয়ে হলুদ, মরিচ, জিরা দিয়ে তেল ওঠা পর্যন্ত কষান। মাছে লবন দিয়ে ভালো করে কচলে ধুয়ে রাখুন। মসলা কষানো হলে মাছ দিয়ে একটু নেড়েচেড়ে দিন। পানি এমন আন্দাজে দিন যাতে নামানোর সময় ছবির আন্দাজে ঝোল থাকবে। মানে পাত্রে ঝোল মাছের সমান সমান হবে। আবার আপনার ইচ্ছে হলে ঝোল বেশীও রাখতে পারেন।
প্যানে ঢাকনা দিয়ে আগুন মাঝারি আঁচে রাখুন। মিনিট দশেক পরে কাঁচামরিচ, ও ধনেপাতা ছড়িয়ে নামিয়ে নিন। বেশি জ্বাল দিলে মাছ ভেঙ্গে যাবে।